উত্তর পূর্বে বিজেপি ‘দুর্নীতির সংস্কৃতি’ শেষ করেছে, কংগ্রেসকে আক্রমণ শাহের

0
28

নয়াদিল্লি: বিজেপি বর্তমানে উত্তর পূর্বের দিকে বিশেষ নজর দিয়েছে। সামনেই রয়েছে ২০২৪ সালের লোকসভা নির্বাচন। তাই এক মুহূর্ত আর সময় নষ্ট করতে চাইছে না গেরুয়া বাহিনী। বিপুল ভোটে জয়ী হতে এখন থেকেই মানুষের মন জয় করতে ময়দানে নেমেছে শীর্ষ মহল থেকে শুরু করে নিচু তলার কর্মীরা। দুদিনের অরুনাচল সফরে গিয়েছেন দেশের সন্ত্রাসমন্ত্রী অমিত শাহ। সেখান থেকে দৃঢ় গলায় বলেছেন, বিজেপি উত্তর-পূর্বে “দুর্নীতির সংস্কৃতি” শেষ করেছে।

নামসাই জেলায় একটি জনসভায় ভাষণ দেওয়ার সময় কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীকে আক্রমণ করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। “ইতালীয় চশমা” খুলে ভারতের সাম্প্রতিক উন্নয়ন দেখার পরামর্শ দিয়েছেন। শাহ সাফ জানিয়েছেন, উত্তর-পূর্বের অঞ্চলটি ৫০ বছরের কংগ্রেস শাসনের সময় অবহেলিত ছিল এবং জোর দিয়েছিলেন যে ২০১৪ সালে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ক্ষমতায় আসার পরেই এটি উন্নয়নের দ্রুত গতিতে হয়েছে। সন্ত্রাসমন্ত্রী কংগ্রেসকে নিশান করে বলেছেন, “কংগ্রেস শাসনকালে এই অঞ্চলের উন্নয়ন তহবিল মধ্যস্বত্বভোগীরা চুরি করে নিয়ে গিয়েছিল। কিন্তু ২০১৪ সালে এনডিএ ক্ষমতায় আসার সাথে সাথে দুর্নীতির সংস্কৃতির অবসান হয়েছে এবং প্রতিটি পয়সা স্বচ্ছতার সাথে ব্যবহার করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী নিশ্চিত করেছেন যে উন্নয়ন তহবিল শেষ মানুষের কাছে পৌঁছে যায়।”

আরও পড়ুন- ভারতে বড় সন্ত্রাসবাদী হামলার ছক কষছে পাকিস্তানের ISI, সতর্কবাণী গোয়েন্দাদের

তিনি দাবি করেছেন যে পুর্ববর্তী সরকারের ত্রুটিপূর্ণ নীতির কারণে উত্তর-পূর্ব পূর্ব জঙ্গিবাদের জন্য পরিচিত ছিল কিন্তু এখন শান্তি বিরাজ করছে কারণ কেন্দ্র বেশিরভাগ বিদ্রোহী সংগঠনের সঙ্গে শান্তি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। শাহের কথায়, “গত আট বছরে এই অঞ্চলে প্রায় ৯,৬০০ জঙ্গি আত্মসমর্পণ করেছে এবং সমাজের মূলধারায় যোগ দিয়েছে। উত্তর-পূর্বের যুবকরা আর বন্দুক সংস্কৃতিতে আগ্রহী নয় এবং তারা এখন স্টার্ট-আপ চালু করছে।” প্রধানমন্ত্রী এই অঞ্চলের জন্য তিনি কী করেছেন তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন কংগ্রেস নেতা। সেই প্রশ্নের জবাবে শাহ কংগ্রেসকে আক্রমণ করে বলেছিলেন যে গ্র্যান্ড ওল্ড পার্টি চোখ বন্ধ রাখলে উন্নয়ন দেখতে পাবে না। তিনি রাহুল গান্ধীর বিরুদ্ধে তোপ দেগে বলেছেন, “রাহুল গান্ধী, চোখ খুলুন, ইতালীয় চশমা বাদ দিন এবং ভারতীয় চশমা পরুন। তাহলেই আপনি দেখতে পাবেন যে মোদি এই অঞ্চলে কী উন্নয়ন এনেছেন, যা আপনার দল ৫০ বছরে করতে ব্যর্থ হয়েছে।”