আট মাস পর কবর থেকে তোলা হল নাবালিকা বধূর দেহ

0
141

ভগবানপুর: আট মাস পর কবর থেকে তোলা হল নাবালিকা বধুর মৃতদেহ৷ বৃহস্পতিবার সকালে কাঁথি আদালতের নির্দেশে ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে ভগবানপুর থানার পুলিশ ভগবানপুর গ্রামের কবর থেকে নাবালিকা বধূর মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কাঁথি মহকুমা হাসপাতালে পাঠাল। ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পর এলাকায় ছড়িয়েছে ব্যাপক চাঞ্চল্য। পুলিশ ওই নিহত নাবালিকা বধুর স্বামী সহ শ্বশুর বাড়ির সদস্যদের বিরুদ্ধে খুনের মামলা রুজু করেছে। অভিযুক্তের শাস্তির দাবিতে সোচ্চার হয়েছেন নাবালিকা বধূর পরিবারের সদস্যরা। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে ভগবানপুর থানার পুলিশ।

সূত্রের খবর, ২০২১ সালের জুলাই মাসে ভগবানপুরের নাবালিকা রবেদা খাতুনের সঙ্গে প্রেম করে বিয়ে করেন ভগবানপুরে জলিবাড় গ্রামের শেখ আউমাউল। দু’মাস সংসার করার পর সেপ্টেম্বর মাসে রবেদা বিবির (১৫) অস্বাভাবিক মৃত্যু হয়। এরপর সন্ধ্যায় নাবালিকা বধূর বাপের বাড়ির সদস্যদের জানানো হয় মৃত্যুর খবর। বধূর শ্বশুরবাড়ির তরফে দাবি করা হয়, বাড়িতে চুলের রং করার কালার খেয়ে মৃত্যু হয়েছে বধূর৷ অভিযোগ, ভগবানপুর গ্রামীণ হাসপাতালেও নিয়ে যাওয়া হয়নি ওই বধূকে৷ বাড়ি থেকে কিছুটা দূরে তাকে কবরস্থ করা হয়৷

- Advertisement -

এদিকে প্রথম থেকেই শ্বশুরবাড়ির কথায় সন্দেহ ছিল বধূর বাপের বাড়ির সদস্যদের৷ খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন, তাঁদের মেয়েকে খুন করা হয়েছে। এরপর গত ৬ এপ্রিল কাঁথি আদালতে খুনের তদন্তের দাবি জানিয়ে মামলা করেন তাঁরা। আদালতের নির্দেশে তদন্তে নামে পুলিশ৷ অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে খুনের মামলা রুজু করেছে পুলিশ৷ এরপর তদন্তের কারণে কবর থেকে নাবালিকার মৃতদেহ তুলে ময়নাতদন্তের পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার সকালে ভগবানপুর থানার ভগবানপুরে গ্রামে ম্যাজিস্ট্রেট ও ভগবানপুরে বিডিও বিশ্বজিৎ মণ্ডল , ভগবানপুর থানার ওসি নাড়ুগোপাল বিশ্বাস সহ একাধিক পুলিশ আধিকারিকদের উপস্থিতিতে নাবালিকার দেহ কবরস্থান থেকে তোলা হয়৷ মৃতদেহটি তুলে ময়নাতদন্তের জন্য কাঁথি মহকুমা হাসপাতালে পাঠিয়েছে পুলিশ। কাঁথি হাসপাতাল থেকে মেদিনীপুর মেডিকেল কলেজে নাবালিকার দেহ ফরেনসিক পরীক্ষার জন্য পাঠানো হবে বলে সূত্রের খবর৷

নাবালিকার বাবা শেখ রফিক আলি বলেন, “আট মাস আগের ঘটনা। মেয়ের মৃত্যুর পর তৎকালীন শ্বশুরবাড়ির সদস্যরাও ময়নাতদন্তের করতে দেননি। বিচার চেয়ে আদালতে দ্বারস্থ হয়েছিলাম। অভিযুক্তদের শাস্তি চাই৷” ভগবানপুর থানার ওসি নাড়ুগোপাল বিশ্বাস বলেন, “আদালতের অভিযোগের ভিত্তিতে খুনের মামলা রুজু করা হয়েছে। মৃতদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য কবর থেকে ময়নাতদন্তে পাঠানো হয়েছে। পুরো ঘটনাটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।’’

আরও পড়ুন: পাইপ লাইনের জলে ভেজানো হচ্ছিল মাঠ, দৌড়ে এল কাক-পায়রা-শালিকের দল