অভিষেকের কনভয়ে হামলার দিন কুড়মিদের ভিড়ে কারা মিশেছিল? খতিয়ে দেখছে সিআইডি

0
60

খাস প্রতিবেদন: ২৬ মে পশ্চিম মেদিনীপুরে তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের কনভয়ে হামলার ঘটনায় কুড়মি সমাজের একাংশ জড়িত? নাকি অন্য কারও ‘ষড়যন্ত্রে’র শিকার কুড়মিরা? সেদিন কি আন্দোলনকারীদের ভিড়ে অন্য কোনও গোষ্ঠী মিশেছিল? তদন্তে নেমে এসবই খতিয়ে দেখছেন তদন্তকারীরা৷

আরও পড়ুন: Horoscope Today: আর্থিক বাধা দূর হবে বৃষ রাশির, পরকীয়ার সম্ভবনা সিংহরাশির, আর আপনার?

- Advertisement -

বস্তুত, শুক্রবার অভিষেকের কনভয়ে হামলার ঘটনায় শনিবার শালবনিতে দাঁড়িয়ে কুড়মি ভাইদের ক্লিনচিট দিয়েছিলেন খোদ রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ জানিয়েছিলেন, এই হামলার নেপথ্যে রয়েছে বিজেপি৷ অথচ মুখ্যমন্ত্রী তথা পুলিশ মন্ত্রী ফিরে যেতেই পুলিশ যেভাবে রাজেশ সহ কুড়মি সমাজের চার নেতা-কর্মীকে গ্রেফতার করেছে তাতে যারপরনাই ক্ষুব্ধ কুড়মি সমাজ৷ স্বভাবতই, পাল্টা আন্দোলনে নেমেছেন কুড়মিরা৷ অন্যদিকে কুড়মিদের তফসিলি জনজাতির শংসাপত্রের অন্তর্ভুক্ত করা চলবে না, এই দাবিতে পাল্টা আন্দোলনে নেমেছে আদিবাসী সমাজও৷

আরও পড়ুন: Weather Update: ফের তাপপ্রবাহের সতর্কতা, কোন কোন জেলায়? রইল বিস্তারিত

এরপরই পরিস্থিতির গুরুত্ব বিচার করে রবিবার রাতেই জেলা পুলিশের হাত থেকে তদন্তভার হস্তান্তর হয়েছে সিআইডির হাতে৷ সূত্রের খবর: তদন্তে নেমে সিআইডি ওই হামলা সংক্রান্ত বেশ কিছু তথ্য পেয়েছে৷ যার ভিত্তিতে তদন্তকারীদের একাংশ মনে করছেন, সেদিন অভিষেকের কনভয়ে হামলার ঘটনায় কুড়মিদের ভিড়ে অন্য কোনও চক্র মিশে থাকলেও থাকতে পারে৷

বস্তুত, একদা মাও উপদ্রবে অশান্ত হয়ে উঠেছিল জঙ্গলমহল৷ বোমা, গুলি, বারুদের সংস্পর্শে ভারী হয়ে উঠেছিল তল্লাটের বাতাস৷ পালাবদলের জমানায় জামবনির বুড়িশোলের জঙ্গলে যৌথবাহিনীর এনকাউন্টারে মাও নেতা কিষেণ জির মৃত্যুর পর ধীরে ধীরে শান্ত হয়ে উঠেছিল জঙ্গলমহল৷ অভিষেকের কনভয়ে হামলার ঘটনার পর ফের নতুন করে তেতে উঠছে জঙ্গলমহল৷ স্বভাবতই, ঘটনাটিকে যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়ে দেখছেন তদন্তকারীরা৷

আরও পড়ুন: কালীঘাটের কাকুর গ্রেফতারি কতটা চাপ বাড়াল অভিষেকের? প্রশ্ন নেটিজেনদের