নওয়াজের বলে বোল্ড হয়েও দৌড়ে তিন রান নিলেন কোহলি, এ ঘটনা কি আদৌও বৈধ

0
240

বিশ্বদীপ ব্যানার্জি: নাটক, নাটক আর নাটক! এই ছিল মেলবোর্নে ভারত-পাক মহারণের অন্তিম ওভারের সারবত্তা। ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ মানেই নাটকীয়তার চূড়ান্ত। কিন্তু এদিন যা হল, তা যেন ছাপিয়ে যাচ্ছে অতীতের সকল ঘটনাকে। অন্তিম ওভারের চতুর্থ বলে এই নাটকের সূত্রপাত।

আরও পড়ুন: ‘বিরাট’ জয়ের পর শিশুর মতো নাচ শুরু করলেন সুনীল গাভাস্কার, Viral Video

- Advertisement -

৩ বলে দরকার তখন ১৩। এ অবস্থায় পাক স্পিনার মহম্মদ নওয়াজের ফুলটস মিড উইকেটের ওপর দিয়ে সীমানার বাইরে ফেলেন বিরাট কোহলি। আর এই ফুলটস আম্পায়ারের মতে কোমরের ওপরে হওয়ায় নো বল ঘোষণা করা হয়। বিতর্ক এখান থেকেই শুরু। পাকিস্তান দল তথা সমর্থকরা দাবি করতে থাকে, ফুলটস হলেও সেটি মোটেও কোমরের উপর ছিল না। তাই কোনও মতেই নো বল নয়। ঘটনাটি যেন মনে করিয়ে দিচ্ছিল একই মাঠে ২০১৫ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনাল। সেদিন মেন ইন ব্লু’র প্রতিপক্ষ ছিল বাংলাদেশ।

আর ঠিক একইভাবে এমনই এক ফুলটসের খেসারত দিতে হয়েছিল তাদের। রোহিত শর্মা সেই বলে মিড উইকেটে তালুবন্দী হওয়া সত্ত্বেও নো বল ঘোষণা করার কারণে বেঁচে গিয়েছিলেন। যার ফলে সে সময় জলখোলা নেহাত কম হয়নি। আজও হয়। বস্তুতঃ রবিবারও কিছু বাংলাদেশী সমর্থক সেই ঘটনা মনে করিয়ে দিয়ে প্রশ্ন তুললেন আইসিসির দিকে। তাদের সেই যুক্তির অবশ্য খুব একটা হালে পানি পাওয়ার কথা ছিল না। কিন্তু মুশকিল হয়ে গেল ঠিক পরের বলেই অর্থাৎ যেটি ফ্রি হিট।

৩ বলে দরকার তখন ৬। এমতাবস্থায় ফ্রি হিট পেয়েও তা কাজে লাগাতে পারেননি ৮২ রানে ব্যাট করা কোহলি। মহম্মদ নওয়াজের বলে তিনি বোল্ড হয়ে যান। কিন্তু নিয়ম অনুযায়ী, যেহেতু নো বলে একমাত্র রান আউট ছাড়া আর কোনও প্রকার আউটই গণ্য হয় না তাই বল উইকেটে লেগে ফিল্ডারহীন থার্ডম্যান অঞ্চলের দিকে চলে যেতেই দৌড়ে তিন রান নিয়ে নেন বিরাট-কার্তিক। যা বাই ঘোষণা করেন আম্পায়ার। প্রশ্ন উঠছে এখানেই। যতই ফ্রি হিট হোক, বল উইকেটে লাগলে সত্যিই কি দৌড়ে রান নিতে পারেন ব্যাটাররা?

শুধু পাকিস্তান দল বা তাদের সমর্থকরাই নয়। এ প্রশ্ন তুলেছেন অস্ট্রেলিয়ার প্রাক্তন ক্রিকেটার ব্র্যাড হগ-ও। তাঁর মতে, বল উইকেটে লাগলে তখনই ডেড বল হয়ে যাবে। অর্থাৎ ব্যাটার কোনও মতেই আর দৌড়ে রান নিতে পারেন না। হগ প্রশ্ন তুলেছেন এমসিসির রুলবুক নিয়ে। কী বলছে নিয়মাবলী?

নাঃ নিয়মাবলীতে নির্দিষ্ট কোনও ব্যাখ্যা নেই এ বিষয়টির। কারণ, এ ঘটনা অত্যন্ত বিরল। অতীতে আর একটিও ঘটেছে বলে আপাতত মনে আসছে না। তবে ক্রিকেটের সার্বিক নিয়ম যদি তলিয়ে দেখা হয়, তাহলে এই ঘটনাকে অবৈধ কী করে বলা চলে? কোনও মতেই বলা চলে না।

মনে রাখতে হবে নো বলে কিন্তু বোল্ড গ্রাহ্য হবে না। আর তা-ই যদি হয়, তাহলে উইকেটে বল লাগল কি লাগল না তাতে কি এসে যায়? এক্ষেত্রে উইকেট থাকাও যা না থাকাও তো তা-ই। তাছাড়া আমরা অনেক সময়ই দেখতে পাই, ফিল্ডারের ছোঁড়া বল স্টাম্পে লেগে ফাঁকা জায়গায় চলে গেলে ব্যাটাররা দৌড়ে অতিরিক্ত রান নিয়ে নেন। এক্ষেত্রে কিন্তু ডেড বল ঘোষণা করা হয় না। বরং ওভারথ্রো গণ্য হয়। তাহলে ফ্রি হিটে বোল্ড হলে রান নিতে সমস্যা কোথায়?

খাস খবর ফেসবুক পেজের লিঙ্ক:
https://www.facebook.com/khaskhobor2020/

আরও একটি উদাহরণ দেওয়া যায়। অনেক সময়ই দেখা যায় বল উইকেটে লেগেও বেল পড়েনি। তারপর সেই বল উইকেটরক্ষকও মিস করায় বাউন্ডারিতে চলে গিয়েছে। এই সময় কিন্তু বাউন্ডারি-ই গণ্য হয়। ডেড বল কখনওই ঘোষণা করা হয় না। তাহলে ফ্রি হিটে বোল্ড হলে, কেন ডেড বল ঘোষণা করা হবে? রবিবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ম্যাচে যা ঘটল, তা কোনমতেই অবৈধ বলা চলে না। বরং এই বল যদি ডেড বল ঘোষণা করা হত, তাহলেই সেটিকে অবৈধ বলা যেত। আর ব্র্যাড হগরা অনেক কথাই বলবেন। একই ঘটনা যদি অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে ঘটত, তখন ইনিই আবার সমর্থন করতেন বিষয়টিকে।