কেন্দ্রের টাকাতেই দিদিমণির লক্ষ্মী ভাণ্ডার, বিস্ফোরক দাবি শুভেন্দুর

0
73
Suvendu Adhikari

মিলন পণ্ডা, নন্দকুমার: রাজ্য সরকারের জালিয়াতি ধরে ফেলেছেন তিনি৷ শনিবার নিজের জেলা পূর্ব মেদিনীপুরের নন্দকুমারের একটি রক্তদান শিবিরে উপস্থিত হয়ে এমনই দাবি রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর (Suvendu Adhikari)৷ সরাসরি মুখ্যমন্ত্রী বন্দ্যোপাধ্যায়ের নামোল্লেখ করে শুভেন্দু বলেন, ‘‘এই সরকার দেউলিয়া হয়ে গিয়েছে। কিছু দিতে পারবে না! তাই কেন্দ্র সরকারের টাকা পরিবর্তন করে লক্ষ্মী ভাণ্ডারে দিচ্ছে! আমরা সব ধরে নিয়েছি৷’’

হুঁশিয়ারির সুরে জানিয়েছেন, ‘‘৯ মাস চুরি করে হিসাব দিতে পারেনি, তাই ১০০ দিনের টাকা বন্ধ রয়েছে৷ ‘জল জীবন মিশন’ প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া নাম পরিবর্তন করে ‘জল স্বপ্না’ করেছে! জল মিশন না করলে জলের টাকাও বন্ধ করে দেওয়া হবে৷ আইসিডিএসে চুরি করছে। মিড ডে মিলে খাওয়ার টাকা ও পোশাকে চুরি করছে৷ তাই কেন্দ্রীয় শিক্ষা মন্ত্রীকে বলেছি, অভিভাবকদের একাউন্টে যেন টাকা দেন৷’’ দাবি করেছেন, ‘‘কেন্দ্রের সরকারের টাকায় তৃণমূলে নেতাদের ‘করে খাওয়া’ অনেকটাই বন্ধ করে দিয়েছি! তাই পুলিশ লাগিয়ে দিয়েছে! সংখ্যালঘু ভোটাররাও অনেকে এখন তৃণমূলের সঙ্গে নেই। যারা পাকিস্তান জিতলে বোম ফাটায়, তারাই রয়েছে এখন৷’’

- Advertisement -

এদিন শুভেন্দু অধিকারী বলেন, ‘‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল সরকার একটি ফুটো কোম্পানিতে পরিনত হয়েছে। সরকারি কর্মচারীদের ডিএ দিতে পারে না, চাকুরি দিতে পারে না৷ প্রাথমিক চাকরি হলে ১০ লাখ, আপার প্রাইমারি হলে ১২ লাখ, এসিসি হলে ১৮ থেকে ২০ লাখ!’’ প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে কটাক্ষ করে বলেন, ‘‘কি সুন্দর দেখুন না! বুড়া পার্থ লজ্জা শরম নেই, হাঁটুর বয়সী মেয়েদের সঙ্গে ওর কার্যকলাপ। একাধিক বান্ধবী। কোথায় গিয়েছে এই তৃণমূল পার্টি!’’ আক্রমণ শানিয়েছেন নেত্রীর উদ্দেশ্যেও, ‘‘কলকাতা থেকে লাফিয়ে নন্দীগ্রামে এসেছিল! নন্দীগ্রাম আমার ছোট বোন। ফিনাইল বিচিং দিয়ে আমি নন্দীগ্রাম থেকে তাড়িয়ে দিয়েছি। পঞ্চায়েত নির্বাচনে তৃণমূল কোথাও নেই। তৃণমূল ভোকাট্টা হয়ে গিয়েছে। শুধু বোতাম টেপার অপেক্ষায়।’’

পাশাপাশি রাজ্যের পুলিশকে তীব্র ভাষায় আক্রমণ করে বলেন, ‘‘বিজেপি কর্মী দীপক খাটুয়ার গায়ে হাত দিয়েছো কেন৷ কে অধিকার দিয়েছে৷ এই কেসটা আমি হাতে নিলাম! কত বড় মাতব্বর হয়েছে আমি দেখছি!’’
বিরোধী দলনেতার এই বক্তব্যের পর রীতিমত শোরগোল পড়েছে রাজ্য রাজনীতিতে। যদিও শুভেন্দুর (Suvendu Adhikari) দাবিকে নসাৎ করে শাসকদল তৃণমূলের দাবি, নিজেরা কোনও কাজ করছে না৷ তৃণমূলকেও বাংলার হয়ে কোনও কাজ করতে না দেওয়ার ফন্দি এঁটেছেন শুভেন্দু৷ তাই বিভিন্নভাবে কেন্দ্রীয় সাহায্য বন্ধ করে দেওয়ার ‘চক্রান্ত’ করছে৷

আরও পড়ুন: হাঁফ ছেড়ে বাঁচলেন রেল কর্তারা, আন্দোলন প্রত্যাহার করল কুড়মিরা

downloads: https://play.google.com/store/apps/details?id=app.aartsspl.khaskhobor