মিল্কি ওয়ে গ্যালাক্সিতে পৃথিবীর খুব কাছেই রয়েছে এক রহস্যময় ভুতুড়ে বস্তু, এ কোন বিপদ

0
48

বিশ্বদীপ ব্যানার্জি: ভূত বলে সত্যিই কিছু আছে? তাও মহাকাশে। এই প্রশ্ন এখন ঘুরপাক খেতেই পারে মহাকাশ বিজ্ঞানীদের মনে। কারণ মহাকাশে তাঁরা একটি রহস্যময় ভুতুড়ে বস্তুর সন্ধান পেয়েছেন। আর খুব দূরে নয়। বস্তুটি রয়েছে আমাদের এই মিল্কি ওয়ে গ্যালাক্সিতে-ই।

আরও পড়ুন: ঈদ সব দেশে একই দিনে পালিত হয় না কেন

- Advertisement -

এই বস্তুটি সর্বপ্রথম শনাক্ত করেছিলেন কার্টিন বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতকস্তরের শিক্ষার্থী টাইরোন ও’ডোহার্টি। ইনি পশ্চিম অস্ট্রেলিয়ার মুর্চিসন ওয়াইডফিল্ড অঞ্চলে একটি টেলিস্কোপে নিজ উদ্ভাবিত একটি কৌশলের সাহায্যে এই ঘূর্ণায়মান বস্তুটিকে দেখতে পান। পরবর্তী সময়ে পর্যবেক্ষণ করে দেখা যায় যে বস্তুটি প্রতি ১৮ মিনিটে ১ মিনিট ধরে এক বিপুল পরিমাণ শক্তি নির্গত করে।

শক্তি নির্গমন নিয়ে চিন্তার জায়গা নেই। মহাকাশে কোনও বস্তুর শক্তি নির্গমণ অতি সাধারণ একটি ঘটনা। কিন্তু টানা এক মিনিট ধরে তার মেয়াদ হওয়া খুবই অস্বাভাবিক। এমনটা দেখা যায় না। এই কারণেই বস্তুটিকে ভুতুড়ে আখ্যা দেওয়া হচ্ছে। খোঁজ চালানো হচ্ছে বস্তুটি সম্পর্কে।

টাইরোন ও’ডোহার্টি আন্তর্জাতিক রেডিও অ্যাস্ট্রোনমি রিসার্চ কেন্দ্রের (ICRAR) তত্ত্বাবধানে একটি দলের অংশ হিসেবে কাজ করেন। এই দলের নেতৃত্বে রয়েছেন কার্টিন বিশ্ববিদ্যালয়ের মহাকাশবিদ ডঃ নাতাশা হার্লি ওয়াকার। তিনি জানিয়েছিলেন, “আমাদের অনুসন্ধানকালে কয়েক ঘন্টা ধরে মাঝে মাঝেই এই ভুতুড়ে বস্তুটিকে দেখা যায়। আবার হারিয়ে যাচ্ছিল। এটা চরম অপ্রত্যাশিত। এমন বস্তুর কথা আগে কখনও শোনা যায়নি।”

খাস খবর ফেসবুক পেজের লিঙ্ক:
https://www.facebook.com/khaskhobor2020/

ICRAR পাশাপাশি জানাচ্ছে, ঘুরন্ত বস্তুটি পৃথিবী থেকে মাত্র ৪ হাজার আলোকবর্ষ দূরে অবস্থান করছে। মহাজাগতিক হিসেবে যেটা কোনও দূরত্ব-ই নয়। বস্তুটির একটি শক্তিশালী চৌম্বকক্ষেত্র থাকার কথাও জানা যাচ্ছে। অনেক বিশেষজ্ঞ ধারণা করছেন, এটি একটি তারার খসে পড়া অবশিষ্ট হতে পারে।