Twitter, Meta থেকে ছাঁটাই হওয়া কর্মীদের ত্রাতা হয়ে উঠল TATA, বিপুল সংখ্যক কর্মী নিয়োগের ঘোষণা

0
38
Layoff

খাস ডেস্ক: বিশ্বজুড়ে বড়বড় টেক কোম্পানিগুলিতে শুরু হয়েছে গণছাঁটাই-এর ঝড়। হাজার হাজার কর্মীকে বরখাস্ত করছেন টুইটার, মেটা। কাজ হারিয়ে রীতিমত মাথায় হাত পড়েছে কর্মীদের। এবার এইসকল ছাঁটাই (Layoff) হওয়া কর্মীদের ত্রাতা হয়ে উঠল টাটা। বিলাসবহুল গাড়ি প্রস্তুতকারক সংস্থা টাটার অধিনস্ত জাগুয়ার ল্যান্ড রোভার প্রায় ৮০০ জন প্রযুক্তি কর্মীকে চাকরি দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছে। শুক্রবার সংস্থার অটোনমাস ড্রাইভিং থেকে শুরু করে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স, ইলেক্টড়িফিকেশন এবং মেশিন লার্নিং-এর মত একগুচ্ছ কাজে কর্মী নিয়োগের কথা জানিয়েছে। ভারতের টাটার অধিনস্ত জাগুয়ার ল্যান্ড রোভারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, আধুনিক প্রযুক্তির ইলেক্ট্রিক গাড়ি প্রস্তুত করতে তাঁদের দক্ষ এবং অভিজ্ঞ কর্মী প্রয়োজন।

আরও পড়ুন- ব্যক্তিবিশেষের জন্য নয়, ক্লাবের জন্য দল গঠন করা হোক, বার্তা লাল-হলুদ কর্তাদের

- Advertisement -

ভারতের পাশাপাশি আমেরিকা, ইংল্যান্ড, চিন এবং হাঙ্গেরিতেও তাঁরা কর্মী নিয়োগ করতে চলেছেন বলে একটি মার্কিন সংবাদমাধ্যমের রিপোর্টে বলা হয়েছে। পাশাপাশি, কাজ হারানো কর্মীদের পাশে দাঁড়াতে এগিয়ে এসেছে ব্রিটিশ লেন্ডার ঋণদাতা সংস্থা বারক্লেজ। লিঙ্কডিনে একটি পোস্টের মাধ্যমে বারক্লেজ-এর অপারেটিং অফিসার জানিয়েছেন, ছাঁটাই (Layoff) হওয়া কর্মীদের নিজেদের ফিনটেক ব্যবসা শুরু করার জন্য তাঁদের ঋণ দিতে প্রস্তুত। বারক্লেজের মার্ক অ্যাস্টন রিগবি লেখেন, “আমি বিশ্বাস করি, যখন একটি দরজা বন্ধ হয়ে যায়, তখন অনেকগুলি দরজা খুলেও যায় এবং বিপদের সময়ে কোনও না কোনও সুযোগ ঠিক চলে আসে”। বারক্লেজের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, ব্যবসা খুলতে ইচ্ছুকদের একটি ২০ সপ্তাহের একটি কোর্স করাবে। যাতে তাঁরা নিজেদের ব্যবসা দক্ষতার সঙ্গে শুরু করতে পারেন।

বিশ্বজুড়ে প্রায় ৩ হাজারেরও বেশি টেকনোলজি কর্মীদের জন্য সুযোগ নিয়ে হাজির হয়েছে সংশ্লিষ্ট সংস্থাটি। রিগবি লেখেন, “যদি জীবনে নতুন অধ্যায় শুরু করতে চান, তাহলে আপনাদের জন্য চমক অপেক্ষা করছে, আজই নিজেদের নাম নথিভুক্ত করুন”। বলা বাহুল্য, করোনা মহামারির পর বিশ্বের টেক জায়ান্টগুলি গণছাঁটাই শুরু করেছে। মার্কিন সংবাদমাধ্যমের রিপোর্ট অনুযায়ী মার্ক জুকারবার্গের মেটা প্রায় ১১ হাজার কর্মীকে বরখাস্ত (Layoff) করেছে, টুইটার থেকে কাজ হারিয়েছেন প্রায় সাড়ে ৭ হাজার কর্মী। অন্যদিকে, অ্যামাজনও তাঁদের প্রায় ১০ হাজার কর্মীকে ছাঁটাই করেছে। এই পরিস্থিতিতে চরম সংকটের মধ্যে পড়েছেন কর্মীরা।