TET Scam: অরিজিনাল শিক্ষকের খোঁজে জারি হল নোটিস

0
44

সুমন বটব্যাল, কলকাতা: ঠগ বাছতে গাঁ উজাড় হওয়ার জোগাড়৷ আদালতের নির্দেশে ব্যাকডোর দিয়ে পাওয়া চাকরি খোয়াতে হয়েছে মন্ত্রিকন্যা অঙ্কিতা অধিকারীকে৷ এই হাল আরও ২৬৯ জনের৷ এরই মাঝে লক্ষ্মীবারে নন্দীগ্রাম থেকে বিস্ফোরক অভিযোগ সামনে এনেছেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী: ১৮ বছর হয়নি, টাকার জোরে এমন কিশোরদেরও প্রাথমিক শিক্ষকের চাকরি দেওয়া হয়েছে৷ এহেন আবহে যিনি স্কুলে পড়াচ্ছেন তিনিই ‘অরিজিনাল শিক্ষক’ কি না, তা জানতে ২০১৪ সালে টেট উত্তীর্ণ প্রাথমিক স্কুলের মাস্টারমশাইদের চাকরির নিয়োগ পত্র (appointment letter) আর কাজে প্রথমদিন যোগ দেওয়ার রিপোর্ট (joining report) জমা দেওয়ার নির্দেশ জারি করেছে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ৷

সূত্রের খবর, ২০১৪-২০১৬ সালের ওই বিতর্কিত সময়ে যারা টেট পাশ করে পরবর্তী সময়ে প্রাথমিক চাকরি পেয়েছেন তাঁদের সকলকেই ওই নথি নিয়ে নিজের নিজের জেলার বিদ্যালয় সংসদের কাছে (ডিপিএসসি) জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের সচিব৷ সম্প্রতি রাজ্যের প্রতিটি জেলার স্কুলগুলিতে পৌঁছে গিয়েছে ওই নির্দেশিকা৷ স্বভাবতই, সংশ্লিষ্ট সময়ে যারা প্রাথমিক শিক্ষকের চাকরি পেয়েছিলেন তাঁদের সকলের মধ্যেই ছড়িয়েছে চরম উদ্বেগ৷

ওই সময়কালে প্রাথমিকে চাকরি পাওয়া লালগড়ের (একদা মাওবাদী উপদ্রুত অঞ্চল) এক স্কুল শিক্ষক বলছেন, ‘‘মনে করতে পারছি না চাকরির নিয়োগ পত্র (appointment letter) আর কাজে প্রথমদিন যোগ দেওয়ার রিপোর্ট (joining report) কোথায় রেখেছি! কিন্তু বিশ্বাস করুন, কোনও ব্যাকডোর নয়, নিয়ম মেনে প্রাথমিক স্কুল শিক্ষকের চাকরি পেয়েছিলাম৷’’ বস্তুত, ২০১৪ থেকে ২০১৬ সালে টেট উত্তীর্ণদের নিয়োগ শুরু হয় ২০১৭ সাল থেকে৷ সব মিলিয়ে প্রায় ৬০ হাজারের বেশি প্রাথমিক শিক্ষক ওই সময় চাকরিতে নিযুক্ত হয়েছিলেন৷ স্বভাবতই, কোনও কারণে জয়েনিং লেটার হারিয়ে ফেললে বিপাকে পড়ার সম্ভবনা তৈরি হয়েছে৷

আরও পড়ুন: প্রাপ্তবয়স্ক না হয়েও টাকার জোরে প্রাথমিকে চাকরি, বিস্ফোরক অভিযোগ শুভেন্দুর