পুজো হোক বা রোজকার খাবার দুপুরে পাতে থাকুক দই ভিন্ডি

0
31

খাস ডেস্ক: আর নয় হেলাফেলা। চোখে নয় চেখে দেখুন এবার। জানুন তার উপকারিতা। অন্য সবজির চেয়ে তার ভাগ্যেই জোটে সমস্ত অবহেলা। তবে এবার থেকে গ্রহণ করুন অন্য পদ্ধতি। নাম তার ঢেঁড়শ। তাকে একটু অবহেলা করে দেখা হয়।

আবার কেউ কিছু না পারলেই তাঁর সঙ্গে ‘ঢেঁড়শ’ বলে এক নয়া নাম দেওয়া হয়। কিন্তু পুষ্টিবিশেষজ্ঞেরা জানাচ্ছেন, ঢেঁড়শের খাদ্যগুণ অনেক বেশি। ঢেঁড়শ হল গুণের ভাণ্ডার। আবার ঢেঁড়শ ভাজা আর গরম ভাত বা রুটি। তাই দিয়েই জমিয়ে খাওয়া যায় তরকারি বা সেরকম পদ না থাকলে।

আরও পড়ুন: ডিনারে আর চিন্তা নয়, ঝটপট বানিয়ে নিন সুস্বাদু দই পনির

ঢেঁড়শ দিয়ে পাঁচ মিশালি তরকারি, ভর্তা এবং পোস্ত এই খাবারগুলিই সচরাচর খেয়ে থাকেন সকলে। কিন্তু দই ঢেঁড়শ বা ভিন্ডি যাই বলুন না কেন পুজোর সময় তো বটেই, বাড়িতে অতিথি এলে তাঁদের জন্য মাছ-মাংস পদের পাশে এই রেসিপি বাটিতে দিতেই পারেন।

তাহলে দেখুন কীভাবে বানাবেন-

উপকরণ- ভিন্ডি, টকদই, লেবুর রস, আমচুর পাউডার, নুন, তেল, হিং,বেসন, লঙ্কা গুঁড়ো, হলুদ গুঁড়ো, ধনে গুঁড়ো, গোটা জিরে, গোটা মৌরি, জলে ভিজিয়ে রাখা কাজুবাটা, লঙ্কা বাটা, গরম মশলা গুঁড়ো, চিনি।

পদ্ধতি- প্রথমে ভিন্ডি ধুয়ে জল ঝরিয়ে একটু লম্বা লম্বা করে কেটে নিতে হবে। তারপর কড়াইতে তেল গরম করে ভিন্ডি গুলো হাল্কা লাল করে ভেজে নিতে হবে। এরপর ওই একই তেলের মধ্যে জিরে, মৌরি ও হিং ফোড়ন দিন।

আরও পড়ুন: গরমে টক দইয়ের সঙ্গে এই উপাদান মিশিয়ে খান, সুফল পাবেন হাতেনাতে

সুগন্ধ বের হলে বেসন দিয়ে কম আঁচে বাদামি করে ভেজে নিতে হবে। তারপর টকদই এবং কাজুবাদাম বাটা দিয়ে দিতে হবে। এই সময় গ্যাসের আঁচ কম রাখতে হবে। সামান্য কষে নিয়ে সমস্ত গুঁড়ো মশলা ও নুন, চিনি দিয়ে আবারও ভালো করে কষে নিতে হবে।

তারপর খুব সামান্য জল দিয়ে ভিন্ডি গুলি দিয়ে দিতে হবে। বেশি জল দরকার নেই কারণ ভিন্ডি গুলো আগে থেকে ভাজা আছে। এক দু মিনিট ফুটিয়ে নিয়ে নামিয়ে নিয়ে পরিবেশন করতে হবে।