করোনার কড়াকড়ি নিয়ে চিনের নৃশংসতায় পিষছে তিব্বত

0
26

খাস ডেস্ক: ফের চিনে করোনার কোপ। চিনের zero-Covid policy এর কারণে বেহাল অবস্থায় চিনের তিব্বতিরা। অমানবিক করোনার নিয়ম জারি করা হয়েছে এই দেশে। এই নিয়মের জেরে রীতিমতো অসহায় অবস্থার মধ্যে পড়ে মানসিকভাবে অত্যাচারিত হচ্ছেন তিব্বতিরা। এমনই নিয়ম জারি রয়েছে সারা দেশে যে তাঁরা তিব্বতের বাইরে কোনোরকম প্রতিবাদ করতে পারবেন না। এমনকি নিজের পরিবারের সঙ্গেও যোগাযোগ রাখতে পারবেন না তিব্বতের বাইরে।

আরও পড়ুন কনের গোপন ছবি ভাইরালের হুমকি, বিয়ের আগে শ্রীঘরে যুবক

- Advertisement -

চিনের zero-Covid policyর ভাইরাসের অব্যবস্থাপনার কারণে তিব্বতে প্রয়োজনীয় সামগ্রীরও অভাব দেখা দিয়েছে। খাবার থেকে ওষুধ সবকিছুরই অভাব দেখা দিয়েছে তিব্বতে। এই সংক্রান্ত একটি ভিডিও পোস্ট হয় ট্যুইটারে, যেখানে দেখা গিয়েছে তিব্বতে খাবারের দাম আকাশ ছোঁয়া। আর যারা এর প্রতিবাদ জানাচ্ছে তারা রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে সহিংসতা প্ররোচনা করছে বলে অভিযোগ আনা হচ্ছে। এমনকি দেখা যাচ্ছে, স্থানীয়দের নির্যাতন করছেন চিনের গার্ডরা এবং আটক করা হচ্ছে তাদের। পাশাপাশি তাদের ফোন কেড়ে নেওয়া হচ্ছে যাতে তারা অন্য কারোর সঙ্গে যোগাযোগ পর্যন্ত করতে না পারে।

তিব্বতে এরকম অমানবিক অত্যাচারের কারণে পাঁচজন আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন। তিবেতের চিনের নিযুক্ত করা এই কোভিড নিয়মের বিরুদ্ধে নিরম প্রতিবাদ চলাকালীন Lhasaর একটি বিল্ডিং থেকে তারা আত্মহত্যা করেন। চিনের কর্তৃপক্ষরা এই রোগকে নিয়ন্ত্রণে আনার পরিবর্তে কোভিড প্রোটোকলকে চরম পর্যায়ে নিয়ে গিয়ে কড়াকড়ি করছেন যার ফলে লাভের থেকে ক্ষতি বেশি হচ্ছে। অল্প খাবার এবং ওশুধের সরবরাহের কারণে তিব্বতিরা এই মূহুর্তে প্রতিবাদের শক্তিও হারিয়ে ফেলছেন। তিব্বতের স্থানীয়দের সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারের ক্ষেত্রেও চিনা নজরদারি চলছে। চিনের এই নৃশংসতার কথা যদি সারা বিশ্ব জেনে যায় সে কারণেই সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারেও কড়াকড়ি করা হচ্ছে। এই কোভিড প্রোটোকল এবং অন্যান্য কড়াকড়ি সমস্তটাই তিব্বতের স্থানীয়দের বিরুদ্ধচারণ করছে বলেও অভিযোগ আনা হচ্ছে।