ফের বৈঠকে বসতে পারে আফগান সরকার ও তালিবান

0
94
প্রতীকী ছবি

খাসখবর ডেস্ক: বেশ কয়েকদিন ধরেই চলছিল দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ। এই যুদ্ধবিরতির অবসান ঘটনার জন্য কাতারের রাজধানী দোহায় আফগান সরকার ও তালিবান বৈঠক বসেছিল। তবে সেই বৈঠকে আশানুরূপ কোন ফল না মেলায়, আবারও বৈঠকের বসতে পারে দুই পক্ষ।

প্রসঙ্গত, এর আগে রবিবার রাতে আফগান সরকার ও তালিবানের প্রতিনিধিরা এক বৈঠকের কথা জানান। এবিষয়ে আফগান সরকারের প্রতিনিধিদলের প্রধান আব্দুল্লাহ আব্দুল্লাহ বলেন, “বৈঠকে দু’পক্ষ তাদের মতামত স্পষ্ট করে তুলে ধরেছে। তবে খুব একটা সমস্যার সমাধান হয়নি। কিন্তু সমস্যার সমাধান করতে আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যে আবার আলোচনায় বসার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।”

এবিষয়েটি নিশ্চিত করেছেন তালেবান প্রতিনিধিদলের প্রধান মোল্লা আব্দুল গনি বারাদার। যদিও মনে করা হচ্ছিল, সাময়িক যুদ্ধবিরতিতে সম্মত হবে হয়ত দু’পক্ষ। কিন্তু যৌথ সংবাদ সম্মেলনে কোনও পক্ষই সে রকম কোনও ঘোষণা দেয়নি।

প্রতীকী ছবি

একদিকে, আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহার শুরুর পর থেকে দেশটিতে আধিপত্য বিস্তার শুরু হয় তালিবানরা। তাদের দাবি, আফগানিস্তানের বেশিরভাগ জেলা এখন তাদের দখলে। এছাড়াও তালিবানের পক্ষ থেকে জানা গিয়েছে, আফগানিস্তানের সরকারি বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে গত চার দিনে অন্তত ৯৬৭ জন তালিবান নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরও পাঁচ শতাধিক।

অন্যদিকে, একথা অস্বীকার করেছে আফগান সরকার। তাদের মতে দেশের পরিস্থিতি এখনও অতটা খারাপের দিকে এগোয়নি। যদিও তালিবানের হামলায় আহত হয়েছেন নিহত হয়েছে নারী-শিশুসহ বহু সাধারণ মানুষও। দুই পক্ষের সংঘর্ষের কারণে বিভিন্ন এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে হাজার হাজার বাসিন্দা।

উল্লেখ্য, ২০০১ সালে মার্কিন-নেতৃত্বাধীন বাহিনীর হাতে ক্ষমতাচ্যুত হয় তালিবান । এরপর দেশটিতে গণতান্ত্রিক প্রেসিডেন্ট নির্বাচন হয় এবং একটি নতুন সংবিধান গৃহীত হয়। কিন্তু তালিবান এরপর এক দীর্ঘ বিদ্রোহী তৎপরতা শুরু করে। ক্রমান্বয়ে তারা আবার শক্তি সঞ্চয় করে এবং যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো বাহিনীকে আরও বেশি করে সংঘাতে জড়িয়ে ফেলে। কিন্তু এখন মার্কিন বাহিনী আফগানিস্তান থেকে তাদের সবশেষ সৈন্যদের প্রত্যাহার করে নিচ্ছে।