সংক্রমণ রুখতে করোনা টিকার বুস্টার ডোজ ব্রিটেনে

0
28
প্রতীকী ছবি

খাসখবর ডেস্ক: বিশ্বজুড়ে আছড়ে পড়েছে তৃতীয় ঢেউ। এর আগেও একাধিকবার বিশ্বজুড়ে সর্তকতা জারি করেছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কর্মকর্তারা। ডেল্টার সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ায় দিন দিন আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে গোটা বিশ্বে।

এই রকম পরিস্থিতিতে সমস্ত রকমের বিধিনিষেধ তুলে দিয়েছে ব্রিটেন। যার জেরে একাধিক সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে ব্রিটেনকে। তবে এবার সংক্রমণ রুখতে দেশের সাধারণ মানুষকে করোনা টিকার বুস্টার ডোজ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রশাসন।

- Advertisement -

প্রসঙ্গত, ১৯ জুলাইয়ের পর থেকে স্বাস্থ্যবিধিতে কড়াকড়ি তুলে দিয়েছে ব্রিটেনে প্রশাসন। একথা জানিয়েছিলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। একটানা লক ডাউন চলার পর এবার স্বাভাবিক জীবনে ফেরার লক্ষ্যে এই পদক্ষেপ নিয়েছিল ব্রিটেন সরকার।

যদিও ব্রিটেনে এখন পর্যন্ত ৬০ লক্ষেরও বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এর মাঝে মৃত্যু হয়েছে ১ লক্ষ ৩০ হাজারের বেশি মানুষ। ইতোমধ্যেই সুস্থ হয়ে উঠেছে প্রায় ৪৪ লক্ষ। এছাড়াও বর্তমানে অ্যাক্টিভ কেসের সংখ্যা প্রায় পাঁচ লক্ষ। তবে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর এই পদক্ষেপে কতটা সফল হবে সেটা নিয়ে একাধিক সমালোচনা শুরু হয়েছে।

প্রতীকী ছবি

জানা গিয়েছে, ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়ায় সম্প্রতি ব্রিটেনে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে। এর জন্য তিন কোটির বেশি নাগরিককে বুস্টার ডোজ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ব্রিটেন সরকার। আগামী সেপ্টেম্বর মাসের ৬ তারিখ থেকেই এই বুস্টার টিকা দেওয়া শুরু করবে প্রশাসন।

টিকাদানে বড়সড় সাফল্য অর্জন করেছে ব্রিটেন। গত বছরের ডিসেম্বরে ব্রিটেনে প্রথম ফাইজার-বায়োএনটেকের ডোজ দিয়ে করোনার টিকাদান কার্যক্রম শুরু করে। এরপরে অন্য কোম্পানির টিকাদানও শুরু হয় দেশে। এখনও পর্যন্ত ব্রিটেনে চার কোটি ৬০ লক্ষেরও বেশি মানুষ করোনার প্রথম ডোজ পেয়েছেন। যাদের মধ্যে দেশের প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের প্রায় ৯০ শতাংশ।

উল্লেখ্য, বিধিনিষেধ শিথিলের পরেই নয়া ভ্যারিয়েন্টে ছড়াচ্ছে ব্রিটেনে। আর এই নতুন ভ্যারিয়েন্টের নাম B.1.621। ইতিমধ্যেই এই ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় অনেকেই। যদিও এই ধরন কতটা শক্তিশালী কিংবা মানব দেহের ওপর কতটা ক্ষতিক্ষর সেটা এখনও জানা যায়নি। পাশাপশি করোনার ভ্যাকসিন এই ভ্যারিয়েন্টের উপর কতটা কার্যকরী সেবিষয়েও কোনও তথ্য পাওয়া যায়নি।