বাংলাদেশের তেলে আগুন, মাথায় হাত আমআদমির

0
32
Bangladesh

প্রতিবেদন: শনিবার সাত সকালে পেট্রোল পাম্পে তেল ভরতে গিয়ে নিজেদের চোখকেই বিশ্বাস করতে পারছিলেন না বাসিন্দারা৷ রাত ১২টার আগে পর্যন্ত লিটার পিছু পেট্রলের দাম ছিল ৮৬ টাকা৷ রাত কাবার হতেই এক ধাক্কায় তা বেড়েছে ৪৪ টাকা। যার ফলে লিটার পিছু পেট্রলের নয়া দাম ১৩০ টাকা! তথৈবচ হাল ডিজেল এবং কেরোসিনের ক্ষেত্রেও৷ লিটার প্রতি ডিজেলের দাম বেড়েছে ৩৪ টাকা। কেরোসিনের ক্ষেত্রেও তথৈবচ হাল৷ ফলে মাথায় হাত বাংলাদেশের (Bangladesh) আমজনতার৷

আচমকা পেট্রোপণ্যের এমন পাহাড় প্রমাণ দাম বৃদ্ধি কেন? বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনের (বিপিসি) দাবি, গত ৬ মাসে পেট্রোপণ্য বিক্রিতে আট হাজার ১৪ কোটি টাকা লোকসান হয়েছে বিপিসির৷ সেই কারণেই জ্বালানির দামে ভর্তুকি তুলে দিয়েছে বাংলাদেশ সরকার। তারই ফলে রাতারাতি দাম বেড়েছে পেট্রল, ডিজেল এবং কেরোসিনের৷ সরকারের দাবি, ইউক্রেনের যুদ্ধ পরিস্থিতির জেরে আন্তর্জাতিক বাজারেও দাম বাড়ছে জ্বালানির। তাই আমদানি স্বাভাবিক রাখতে বাধ্য হয়েই জ্বালানির দাম বৃদ্ধি করা হয়েছে৷

সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বাংলাদেশের জ্বালানি এবং খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নজরুল হামিদ জানিয়েছেন, একান্ত নিরূপায় হয়েই সরকার এই দাম বৃদ্ধি করতে বাধ্য হয়েছে৷ তবে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে আবারও দাম কমানো হতে পারে পেট্রোপণ্যের৷ বস্তুত, ২০১৬ সালে পেট্রোপণ্যের দাম কমেছিল সে দেশে।

বস্তুত, রাতারাতি লিটার পিছু ৪৪ টাকা দাম বৃদ্ধি হওয়ায় শনিবার সকাল থেকেই বাংলাদেশের (Bangladesh) রাস্তাঘাট ফাঁকা হয়ে গিয়েছে৷ অধিকাংশ বাস রাস্তায় নামেনি৷ একইভাবে দু’চাকা, চার চাকার যান চলাচলও অনেকখানি কমে গিয়েছে৷ শুধু পেট্রল বা ডিজেল নয়, যেভাবে কেরোসিনের দামও লিটার পিছু ৩৪ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে তাতে মাথায় হাত মধ্যবিত্তের৷

আরও পড়ুন: মোদী-মমতার সেটিং হলে বিজেপির সুবিধা হবে, দাবি শুভেন্দুর শিষ্যার

downloads: https://play.google.com/store/apps/details?id=app.aartsspl.khaskhobor