কেন্দ্রীয় সম্পত্তি ফেরত পেতে চেয়ে মার্কিন কংগ্রেসকে চিঠি আফগানিস্তানের

0
32

খাস খবর ডেস্ক: তালিবানেরা দখল করে নেওয়ার পর থেকেই চরম দুর্গতির সন্মুখীন আফগানিস্তান। দেশটির অর্থনীতি বলতে গেলে তলানিতে এসে ঠেকেছে। এ অবস্থায় তাদের ঘুরে দাঁড়াতে হলে প্রয়োজন প্রভূত পরিমাণ বৈদেশিক সাহায্য।

আরও পড়ুন: দুর্ভিক্ষ আর কড়া শীতে শিশু-মহামারীর অশনি সংকেত আফগানিস্তানে

কিন্তু আমেরিকার রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে কে সাহায্য করবে তালিবানি কাবুলকে? ফলতঃ নিজেদের ব্যবস্থা নিজেদেরই করে নিতে হল কাবুলিওয়ালাদের। কীভাবে? আফগানিস্তানের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের যাবতীয় তহবিল বাজেয়াপ্ত করেছিল মার্কিন সরকার। একটি সংবাদমাধ্যম জানাচ্ছে, সেই সম্পদ ফিরে পেতে সম্প্রতি মার্কিন কংগ্রেসকে আবেদন জানানো হয়েছে।

আফগান সরকারের পক্ষ থেকে এই আবেদন জানান ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির খান মুত্তাকি। মার্কিন কংগ্রেসকে দেওয়া আবেদনপত্রে তিনি লেখেন, “দোহা চুক্তির পর ইসলামিক আমিরাত এবং আমেরিকার মধ্যেকার সমস্ত বিরোধ শেষ হয়ে গিয়েছে। এরপরও আফগানিস্তানর কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ওপর মার্কিনীরা নিষেধাজ্ঞা জারি রেখেছে। এটি নিঃসন্দেহে চুক্তির বিরোধী।”

চিঠিতে আরও বলা হয়, “আফগানিস্তানের জাতীয় সম্পদের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে কোনও সমস্যার সমাধানই সম্ভব নয়। আর মার্কিন জনগণেরও দাবী নয় এটি। যত দ্রুত সম্ভব এই নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে নিতে হবে।” শীত আসন্ন। এই সময়ে দুর্ভিক্ষ এবং শিশুমৃত্যুর প্রমাদ গুনছেন আফগানরা। জাতীয় সম্পদের ওপর নিষেধাজ্ঞা যদি তুলে না নেওয়া হয়, সেক্ষেত্রে এক ভয়াবহ পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হবে। এই বিষয়টিরও উল্লেখ করা হয়েছে চিঠিতে।

আরও পড়ুন: শতাব্দীর ভয়ঙ্করতম ঘূর্ণিঝড়, নিখোঁজ বহু

লেখা হয়, “আমরা উদ্বিগ্ন যে এই পরিস্থিতি বিরাজ করলে আফগানিস্তান সংলগ্ন দেশগুলিতে অভিবাসন সমস্যা দেখা দিতে পারে। এর ফলে মানবিক এবং অর্থনৈতিক সংকট চূড়ান্তে পৌঁছবে।” এদিকে আফগানদের একটি সংবাদ সংস্থা সূত্রে খবর, বিশ্ব মানবাধিকার কমিশন জাতিসংঘকে ইতিমধ্যেই আফগানিস্তানের ওপর থেকে যাবতীয় নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে আহ্বান জানিয়েছে।