গ্যাসের দাম গগনচুম্বী, চূড়ান্ত খাদ্য সংকটে না খেয়ে মরতে বসেছে মানুষ

0
65

খাস খবর ডেস্ক: চরম আর্থিক বিপর্যয়ের সম্মুখীন শ্রীলঙ্কা। এই অবস্থায় দ্বীপরাষ্ট্রে এক খাদ্য সংকটেরও হুঁশিয়ারি দিয়ে রাখলেন দেশটির ভারপ্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহে। এর আগে গত বছরের এপ্রিলে রাষ্ট্রপতি গোতাবায়া রাজাপক্ষ সমস্ত প্রকার রাসায়নিক সারের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল। এর ফলে দেশে শস্যের ফলন কমে যায়। খাদ্য সংকটের হুঁশিয়ারির পাশাপাশি নবনিযুক্ত প্রধানমন্ত্রী এই মরশুমে চাষীদের জন্য পর্যাপ্ত সার আমদানি করার আশ্বাস দিয়েছেন।

আরও পড়ুন: ছাত্ররা বুঝবে না বলে জাতীয় ভাষা ব্যবহার করেননি, সেই অপরাধে কারাগারে শিক্ষক

ইতিপূর্বেই সরকার নিজেদের ভুল বুঝতে পেরেছিল। সেইমত সারের ওপর নিষেধাজ্ঞা-ও প্রত্যাহার করে নেওয়া হলেও বৈদেশিক মুদ্রার অভাবের কারণে পর্যাপ্ত পরিমাণ সার আমদানি করা যায়নি। তাহলে এখন কীভাবে সে সমস্যার সমাধান হবে? প্রধানমন্ত্রী টুইটারে বলেন, “চলমান মরশুমের জন্য (মে-আগস্ট) সার সংগ্রহের পর্যাপ্ত সময় না থাকলেও, আসন্ন সেপ্টেম্বর থেকে মার্চ পর্যন্ত পর্যাপ্ত সারের মজুত নিশ্চিত করতে পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।”

কিন্তু সমস্যা তো শুধু সারে নয়। তীব্র সংকটে দেখা দিয়েছে ওষুধ এবং জ্বালানির ভাণ্ডারে-ও। গ্যাস সিলিন্ডারের দাম গগনচুম্বী, তবু গ্যাসের দোকানের বাইরে লাইন দিয়েছেন সাধারণ মানুষ। এদিকে জনৈক ক্রেতার কথায়, “মাত্র ২০০ সিলিন্ডার রয়েছে। অথচ দোকানের বাইরে অপেক্ষা করছেন অন্ততঃ ৫০০ জন।”

খাস খবর ফেসবুক পেজের লিঙ্ক:
https://www.facebook.com/khaskhobor2020/

একেকজন দিনের পর দিন লাইনে দাঁড়াচ্ছেন। তবু তাঁরা গ্যাস পাচ্ছেন না। মহম্মদ শাজলি নামের উক্ত ক্রেতা আরও জানান, তাঁর পাঁচ সদস্যের পরিবার। এই নিয়ে তিনদিন লাইনে দাঁড়ালেন। কিন্তু সিলিন্ডার আদৌ পাবেন কিনা, সে নিশ্চয়তা নেই। এ অবস্থায় বলেন, “গ্যাস বা কেরোসিন তেল ছাড়া আমরা চলব কী করে? অতয়েব একটিই বিকল্প। আমরা খাবার ছাড়া মরতে বসেছি। আর এটিই হবে। ১০০ ভাগ নিশ্চিত।”