পড়ুয়াদের দিয়ে শৌচাগার পরিষ্কার করানোর অভিযোগ ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে

0
28
প্রতিকী ছবি

মালদহ: গরমের ছুটি পিছিয়ে গিয়েছিল৷ অবশেষে ২৭ জুন অর্থাৎ সোমবার স্কুল খোলে৷ এতদিন বন্ধ থাকায় স্বভাবতই স্কুলে ময়লা জমে গিয়েছে৷ সেই নোংরা পরিষ্কারের দায়িত্ব তো আর পড়ুয়াদের নয়৷ কিন্তু এই চিত্রই দেখা গিয়েছে মালদহের একটি স্কুলে৷ ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রছাত্রীদের দিয়ে স্কুলের শৌচাগার সহ ঘর গুলি পরিষ্কারের অভিযোগ ওঠে৷ সেই সঙ্গে পড়ুয়াদের মারধরও করে বলে দাবি অভিভাবকদের৷

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, মানিকচক এলাকার ফত্তেনগর রায়নগর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ঘটনা৷ অভিযুক্ত ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের নাম মাধব মণ্ডল৷ সোমবার স্কুল খোলার পর তিনি পড়ুয়াদের দিয়ে শৌচালয় সহ স্কুলের ঘরগুলি পরিষ্কার করানোর কাজ করছিলন৷ সামান্য ময়লা থেকে যাওয়ায় আবার ছয় জন ছাত্রছাত্রীকে মারধরও করেন ওই শিক্ষক৷ অভিভাবকরা এই ঘটনা জানতে পেরে ক্ষোভে ফেটে পড়ে৷

সেই সঙ্গে মাধব মণ্ডলের বেধড়ক মারে অসুস্থ হয়ে পড়ে পড়ুয়ারা৷ তাঁদের পরিবার মানিকচক গ্রামীণ হাসপাতালে চিকিৎসা করায়৷ শিক্ষকের এই ধরণের আচরণে ক্ষুব্ধ ছাত্রছাত্রীদের পরিবার৷ সেই সঙ্গে বুধবার রাতে মানিকচক থানায় ওই ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন অভিভাবকরা৷ সেই সঙ্গে ওই শিক্ষকের বদলির দাবি করেছেন তাঁরা৷ কারণ মাধব মণ্ডলের ভয়ে পড়ুয়ারা স্কুলে যেতে চাইছে না৷

অভিভাবকদের অভিযোগ, পড়ুয়াদের স্কুলের শৌচালয় পরিষ্কার করিয়েছেন ওই শিক্ষক৷ এরপর বেধড়ক মারধরও করে৷ এই কথা পরিবারকে জানালে আরও মারধরের হুমকিও দেয় ওই শিক্ষক৷ ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে থানা বাদেও অভিযোগ জানানো হয়েছে, পঞ্চায়েত এবং এসআই দফতরে৷ পরিবারের দাবি, পড়ুয়াদের কি স্কুলে শৌচালয় পরিষ্কার করানোর জন্য ভর্তি করা হয়েছে? পড়াশোনা না করিয়ে এই সব কাজ করাচ্ছে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক এটা কি মেনে নেওয়া যায়?

অন্যদিকে এই প্রসঙ্গে অভিযুক্ত শিক্ষক মাধব মণ্ডল বলেন, ‘‘আমার বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ ভিত্তিহীন৷ বিদ্যালয় পরিষ্কার করার কাজ আমি নিজে হাতে সামলেনি৷ পড়ুয়াদের দিয়ে এই সব কাজ আমি করাই না৷ ফাঁকি মারার সুবিধা না পাওয়ার জন্যই আমার বিরুদ্ধে এই মিথ্যে অভিযোগ করছে৷ সেরকম হলে প্রশাসন সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখুক৷ সেখানেই প্রমাণ হয়ে যাবে ঘটনার সত্যতা৷’’