প্রিয় দিদিমণিকে ছাড়তে নারাজ, বদলি আটকাতে পথে পড়ুয়ার দল

কেশাতড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ুয়ার সংখ্যা মাত্র ৫৮

0
82
teacher

তিমিরকান্তিপতি, বাঁকুড়াঃ শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতি নিয়ে এখন সরগরম রাজ্য রাজনীতি। গ্রেফতার রাজ্যের তাবড় তাবড় নেতা। দুর্নীতির শিকড় খুঁজতে মাঠে নেমে পড়েছে সিবিআই (CBI), ইডি (ED)। বেনিয়মের মাধ্যমে চাকরিতে ঢোকার অভিযোগে চাকরি হারিয়েছেন অনেক চাকুরিজীবী। শিক্ষক মানেই যিনি শিক্ষার্থীকে আলোর পথ দেখাবেন, সচেতন করবেন। কিন্তু দুর্নীতির চাপে আজ সেই শিক্ষকের (teacher) ইমেজ অনেকটাই ফিকে। রাজ্যের এই ডামাডোলের মাঝে অন্য ছবি বাঁকুড়ার তালডাংরার কেশাতড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ে।

আরও পড়ুন : সোনা পাচার মামলায় গ্রেফতার তৃণমূল নেতার ছেলে, জামিন মঞ্জুর আদালতের

- Advertisement -

গত কয়েক বছর আগে তালডাংরার কেশাতড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহ শিক্ষিকা হিসেবে কাজে যোগ দিয়েছেন ঝুমা গরাই। অল্প কয়েক দিনের মধ্যেই ছাত্র, ছাত্রী, অভিভাবক সকলের প্রিয় হয়ে ওঠেন। সম্প্রতি পার্শ্ববর্তী অন্য এক স্কুলে বদলির সরকারি নির্দেশ হাতে পান ঝুমা । আর এই খবরে হতাশ ছাত্র-ছাত্রীরা। আর তাই ‘প্রিয় দিদিমনি’র বদলি আটকাতে বৃহস্পতিবার প্ল্যাকার্ড-ফেস্টুন হাতে পথে নামে কেশাতড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ক্ষুদেরা। ছাত্র-ছাত্রীদের কাছে এমন ভালোবাসা পেয়ে চোখে জল ‘দিদিমনি’ ঝুমা গরাইয়েরও।

teacher

আরও পড়ুন : রাতের অন্ধকারে বাড়ি বাড়ি গিয়ে হুমকি, অভিযোগ কবির ভিটে-মাটি দখল করতে তৎপর প্রতিবেশী

জানা গেছে, কেশাতড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ুয়ার সংখ্যা মাত্র ৫৮ জন। প্রধানশিক্ষক সহ মোট শিক্ষক-শিক্ষিকার (teacher) সংখ্যা তিন। এদের মধ্যে একজন পার্শ্ব শিক্ষিকা। তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী সঙ্গীতা পতি, চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী সাথী সিংহ মহাপাত্ররা বলে, “ম্যাম আমাদের প্রত্যেককেই খুব ভালোবাসেন। উনি খুব পড়ান, কোন অবস্থাতেই ছেড়ে যেতে দেব না”। শিক্ষিকা ঝুমা গরাইকে এবিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, “ছাত্র-ছাত্রীরা আমাকে খুব ভালোবাসে, আমিও ওদের ভালোবাসি। ওরা যেমন ছাড়তে চাইছে না, আমিও মন থেকে চাইনা ওদের ছেড়ে যেতে।” এই পরিস্থিতিতে তাঁর কিছুই করার নেই, জানালেন প্রিয় দিদিমণি।