School-College: মহামারী কাটিয়ে দেড়বছর পর আগামীকাল খুলছে স্কুল-কলেজ, মুখে হাসি ছাত্র-ছাত্রী থেকে স্কুল কর্তৃপক্ষের

0
36

সুদেষ্ণা মণ্ডল, দক্ষিণ ২৪ পরগনা: আগামী কাল থেকে রাজ্যে খুলছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গুলি। সোমবার চরম প্রস্তুতির ছবি ধরা পরল স্কুলগুলিতে। যুদ্ধকালীন তৎপরতায় চলছে স্কুল সংস্কারের কাজ। দীর্ঘ প্রায় দেড় বছর বন্ধ থাকার পর মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে আবারও খুলছে স্কুল ,কলেজ।

আরও পড়ুন-Elephant: শেষমেশ জঙ্গলে ফিরল হাতি, প্রায় ৭ ঘণ্টার চেষ্টায় জলপাইগুড়িতে নিয়ন্ত্রণে পরিস্থিতি

প্রায় দেড় বছরে দক্ষিণ ২৪ পরগনার একাধিক উপকূলবর্তী এলাকা গুলিকে বিভিন্ন সময় প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের সম্মুখীন হতে হয়েছে । কখনও আম্ফান, কখনও বা ইয়াস। এই সব বিপর্যয়ের সম্মুখীন হয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সাগর, কাকদ্বীপ, নামখানা, পাথরপ্রতিমা, কুলতলী ,ক্যানিং ,রায়দিঘি সহ উপকূল তীরবর্তী এলাকার বহু স্কুল। বিধ্বংসী ঘূর্ণিঝড় একের পর এক প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের কারণে কোনও কোনও স্কুলে উড়ে গিয়েছে ছাদ। কোথাও বা বেহাল দশা স্কুলের জানলা দরজার। আবার কোথাও বা স্কুলের সামনে জমেছে আগাছার জঙ্গল।

এবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে যুদ্ধকালীন তৎপরতায় স্কুল মেরামতে কাজ চালানো হচ্ছে স্কুল কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে। করোনা মহামারী কালে ছাত্র-ছাত্রীদের পঠন-পাঠনের অন্যতম মাধ্যম হয়ে দাঁড়িয়েছিল অনলাইন শিক্ষা ব্যবস্থা। দীর্ঘ অপেক্ষার পর আবারও স্কুল খোলার খুশি ছাত্রছাত্রীরা থেকে অভিভাবকরা। সপ্তাহের শুরুতে স্কুলগুলিতে চরম ব্যস্ততার ছবি ধরা পড়ল। কোনও কোনও স্কুলে চলছে মেরামতের কাজ। স্কুল সংস্কারের কাজে হাত লাগিয়েছে পড়ুয়ারাও। স্কুলের ক্লাস রুম থেকে স্কুল প্রাঙ্গণ সমস্ত তাই স্যানিটাইজ করা হচ্ছে। দীর্ঘদিন ধরে বেহাল অবস্থায় ছিল পানীয় জলের কল গুলি সেগুলিও নতুন করে সংস্কার করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন-Physical Assault: পৈশাচিক, প্রায় ছয়মাস ধরে ৪০০ জনের ধর্ষণের শিকার নাবালিকা

জানা গিয়েছে, নিউ নর্মালে নামতে হবে একাধিক স্বাস্থ্যবিধি। পাশাপাশি সামাজিক দূরত্ববিধিও মেনে চলতে হবে। করোনা স্বাস্থ্যবিধির কথা মাথায় রেখে প্রতিটি বেঞ্চে দুজন করে ছাত্র-ছাত্রী বসতে পারবে। বেঞ্চের উপর স্কুল কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে চক আউট (নির্দেশিকা দেওয়া হচ্ছে)। সাফ জানিয়ে দিয়েছেন প্রশাসন। এদিকে স্কুল খোলা নিয়ে খুশি ছাত্রছাত্রীরা। ছাত্র-ছাত্রীদের দাবি, বহুদিন পর আবারও খুলছে স্কুল, এর ফলে আনন্দিত সকলেই। অনলাইনের মাধ্যমে পড়াশোনা হলেও, স্কুলের সেই পরিবেশ পাওয়া যায় না। স্কুলের হারানো পরিবেশ ফিরে পেতে স্কুল করা অত্যন্ত আবশ্যক হয়ে দাঁড়িয়েছিল। রাজ্য সরকারের এই সিদ্ধান্তের খুশি ছাত্রছাত্রীরা।

স্কুল কর্তৃপক্ষের দাবি, রাজ্য সরকারের ঘোষণার পর আমরা যুদ্ধকালীন তৎপরতায় স্কুল সংস্কারের কাজ শুরু করে দিয়েছি। স্কুল সংস্কারের কাজ প্রায় শেষের পথে। দফায় দফায় বৈঠক করা হয়েছে প্রশাসনে আধিকারিকদের সাথে বিভিন্ন সময়ে প্রশাসনের আধিকারিকরা স্কুলে এসে পরিকাঠামো পরিদর্শন করে গিয়েছে। ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণে মাস্কের ব্যবস্থা থাকছে স্কুলে। স্কুলে প্রবেশ করা থেকে স্কুল ছুটি পর্যন্ত প্রতি ঘন্টায় ঘন্টায় স্কুল রুম স্যনিটাইজ থেকে শুরু করে ছাত্রছাত্রীদের জন্যও স্যানিটাইজার এর ব্যবস্থা করা হবে। করণা স্বাস্থ্যবিধি মেনে পঠন -পাঠন চলবে। নবম শ্রেণী থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে শুরু হচ্ছে স্কুল। স্কুল খোলার খবরে যেমন আনন্দিত ছাত্রছাত্রীরা তেমনই আনন্দিত শিক্ষক শিক্ষিকারাও।