টালার পর সল্টলেক, নতুন সেতু উদ্বোধনে দূরত্ব কমছে দুই প্রান্তের

0
23
saltlake bridge

কলকাতা- অবশেষে আজ উদ্বোধন হল সল্টলেক (saltlake) ও কৃষ্ণপুর সংযোগকারী ব্রিজের। সঙ্গে সঙ্গে শেষ হল দীর্ঘ প্রতীক্ষা। গোটা সল্টলেক জুড়ে গড়ে উঠেছে নানা অফিস। রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তের পাশাপাশি রাজারহাট থেকে প্রতিদিন কয়েকশো মানুষ যান সল্টলেকে। এবার সল্টলেক ও কৃষ্ণপুর সংযোগকারী ব্রিজের জেরে দূরত্ব কমবে সল্টলেক ও রাজারহাটের।

রাজারহাট থেকে সল্টলেক কয়েক কিলোমিটার রাস্তা ঘুরে আসতে হত এতদিন। সময় ব্যয় হত বেশ কিছুটা। সল্টলেক ও কৃষ্ণপুর সংযোগকারী ব্রিজের উদ্বোধনে কমবে সল্টলেক ও রাজারহাটের মধ্যে দূরত্ব। এই সেতু সল্টলেক এজে ব্লক, একে ব্লক ও কেষ্টপুরের মধ্যে সংযোগ স্থাপন করবে। ব্রিজটির উদ্বোধন করলেন সাংসদ সৌগত রায়। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন সাংসদ কাকলি ঘোষ দস্তিদার, রাজ্যের সেচ ও জলপথ বিভাগের মন্ত্রী পার্থ ভৌমিক, দমকল মন্ত্রী সুজিত বসু, সেচ ও জলপথ দফতরের প্রধান সচিব প্রভাত মিশ্র, বিধাননগরের মেয়র কৃষ্ণা চক্রবর্তী, ডেপুটি মেয়র অনিতা মণ্ডল, মেয়র পারিষদ দেবরাজ চক্রবর্তী, রাজারহাট গোপালপুরের বিধায়ক অদিতি মুন্সী।

- Advertisement -

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে সাংসদ সৌগত রায় (sougata roy) জানান, বহুদিন ধরে মানুষের কাছে এই ব্রিজটি কাঙ্খিত ছিল। ব্রিজটি উদ্বোধনে বহু মানুষের উপকার হবে। এই ব্রিজের মাধ্যমে সল্টলেক ও কেষ্টপুর বাগুইআটি সহ সংলগ্ন অঞ্চলের মধ্যে যোগাযোগ ব্যবস্থা আরও সহজ হবে। পাশাপাশি সাংসদ সৌগত রায় দমকল মন্ত্রী সুজিত বসুকে অনুরোধ করেন সল্টলেক ও কেষ্টপুরের এই ব্রিজে একটি অটো রুট বা বাস রুট চালু করার জন্য। সম্প্রতি নতুন করে উদ্বোধন হয় টালা ব্রিজের। ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে টালা ব্রিজ ভাঙার কাজ শুরু হয়। ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের মধ্যে কাজ শেষ হওয়ার টার্গেট থাকলেও করোনার জন্য অনেক কাজ পিছিয়ে যায়। প্রায় ৮০০ মিটার লম্বা নতুন টালা রেলওভার ব্রিজের ২৪০ মিটার পুরোপুরি রেলপথের উপরে রয়েছে।