সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে জেলায় জেলায় পালিত হল রবীন্দ্রজয়ন্তী

0
271

নিজস্ব সংবাদদাতা, বাঁকুড়া ও মালদহ: করোনা সতর্কে লকডাউনের জেরে রবি প্রণামেও ছন্দপতন ঘটেছে। অসংখ্য সাধারণ মানুষের সঙ্গে গৃহবন্দি রবীন্দ্র প্রেমীরা। তারমধ্যেও সম্পূর্ণ অনাড়ম্বরভাবে জেলায় জেলায় কবির জন্ম দিন পালন করলেন অনুরাগারীরা। এমনই চিত্র দেখা গেল বাঁকুড়া ও মালদহে৷

জেলা তথ্য ও সংস্কৃতি দফতরের উদ্যোগে বাঁকুড়া গান্ধী বিচার পরিষদে রবীন্দ্র প্রতিকৃতিতে মাল্যদান করা হয়। একই সঙ্গে রবীন্দ্র স্মৃতিধন্য ‘হিল হাউসে’ রবীন্দ্র মূর্তিতে মালা দিয়ে শ্রদ্ধা জানান জেলা তথ্য ও সংস্কৃতি আধিকারিক অরুণাভ মিত্র। উপস্থিত ছিলেন সংশ্লিষ্ট দফতরের কর্মী ও আধিকারিকরা।

সংস্থার জন্মলগ্ন থেকে ফি বছর জাঁকজমক ভাবে রবীন্দ্র জয়ন্তী পালন করেন বাঁকুড়া আলেখ্য টেগোর কালচারাল আকাদেমী। রবীন্দ্র ভাবনা, চেতনা ও রবীন্দ্র আদর্শে পথচলা এই সাংস্কৃতিক সংস্থাটিও এবার সরকারি নিষেধাজ্ঞা মেনে কোনরকম জমায়েত না করে রবীন্দ্র স্মরণ অনুষ্ঠান করলেন।

শুক্রবার শহরের সুকুমার উদ্যানের ছাতিম তলায় সংস্থার তরফে রবীন্দ্র মূর্তিতে মালা দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়। উপস্থিত ছিলেন বাঁকুড়া পুরসভার উপপৌর প্রধান দিলীপ আগরওয়াল, আয়োজক সংস্থার সম্পাদক, বিশিষ্ট বাচিক শিল্পী, সাংবাদিক দেবাশীষ মৌলিক, মনোজ কর্মকার প্রমুখ।

বাঁকুড়া আলেখ্য টেগোর কালচারাল আকাদেমীর সম্পাদক দেবাশীষ মৌলিক বলেন, ‘‘এবছর আজকের দিনটা বড় কষ্টের বড় বেদনার। অন্যান্য বছরের মতো এবছরও ছাতিম তলায় উপস্থিত হয়েছি ঠিকই, তবুও যেন ছন্দপতন। রবীন্দ্র মূর্তিতে মাল্যদান ছাড়া এবার সেভাবে কিছুই করতে পারলাম না। তবে ‘হে সখা মম, হৃদয়ে রব’ ছাড়া কিছুই চাইতে পারলেন না৷’’

 

অন্যদিকে, রবীন্দ্র জন্মোৎসব কমিটির পক্ষ থেকে শহরের রবীন্দ্র সরণীতে কবির আবক্ষ মূর্তিতে মাল্যদান করে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করা হয়৷ তাঁর জন্মদিনে ‘করোনা’ আক্রান্ত যাতে না হন সেদিকেও কড়া নজর ছিল উদ্যোক্তাদের। কথাটা শুনতে অবাক লাগলেও এটাই সত্যি। রবীন্দ্র সরণীর রবীন্দ্র মূর্তিতে মাস্ক পরালেন তারা।

একই সঙ্গে বাঁকুড়া জেলা পুলিশের পক্ষ থেকেও রবীন্দ্রনাথের ১৫৯ তম জন্মদিন উপলক্ষ্যে পদযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়। বাঁকুড়া শহর, বিষ্ণুপুর থানা সহ অন্যান্য সব জায়গাতেই পুলিশের পক্ষ থেকে দিনটি পালন করা হয়। ডান-বাম সব রাজনৈতিক দলগুলির তরফেও রবীন্দ্র জয়ন্তী পালিত হয়। জেলা তৃণমূলভবনে কবির প্রতিকৃতিতে মালা দিয়ে শ্রদ্ধা জানান মন্ত্রী শ্যামল সাঁতরা সহ দলের জেলা নেতৃত্ব।

অন্যদিকে, সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে রবীন্দ্রজয়ন্তী পালন করতে দেখা গেল মালদহ জেলা পুলিশ প্রশাসন ইংরেজ বাজার পুরসভা এবং মালদহ শিল্পী সংসদ। প্রতি বছর ২৫ শে বৈশাখ দিনটি মালদহ শহরে ইংরেজ বাজার পুরসভার পক্ষ থেকে করা হলেও এই বছর প্রথম জেলা পুলিশ অংশগ্রহণ করে।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের মূর্তিতে প্রথমে মাল্যদান করেন ইংরেজ বাজার পুরসভার পৌরপিতা নীহার রঞ্জন ঘোষ উপ-পৌরপিতা দুলাল সরকার জেলা পুলিশ সুপার অলোক রাজরিয়া সহ পুলিশের পদস্ত আধিকারিকেরা। শহরের ফোয়ারা মোড় থেকে সকালে এক পদযাত্রার আয়োজন করে পুলিশ প্রশাসন৷