একের পর এক তল্লাশি, একযোগে ৯ জায়গায় হানা পুলিশের

0
20
police

কলকাতা ঃ  মোবাইল অ্যাপ প্রতারণা মামলায় কলকাতা পুলিশ (police) একযোগে ৯ জায়গায় তল্লাশি চালাল। মূলত মোবাইল অ্যাপ নাগেটসকে কেন্দ্র করেই তল্লাশি অভিযান চালাল পুলিশ। এদিন দমদম নাগেরবাজারে বহুতল অফিস কমপ্লেক্সের ছয় তলার একটি অফিসে অভিযান চালানো হয়।

কলকাতা পুলিশের (police) অ্যান্টি রাউডি স্কোয়াড ও সাইবার ক্রাইমের আধিকারিকেরা যৌথভাবে তল্লাশি অভিযান শুরু করে। মোবাইল অ্যাপ নাগেটসকে কেন্দ্র করেই শহরের ৯ জায়গায় একযোগে তল্লাশি চালায় পুলিশ। দমদম নাগেরবাজারে একটি বহুতল অফিস কমপ্লেক্সের ছয়তলায় তল্লাশি চালানো হয়। অফিসের ৬০৭, ৬০৮ ও ৬০৯ নম্বর ঘরে চলে তল্লাশি। উদ্ধার হয়েছে একটি ল্যাপটপ হার্ডডিক্স ও বেশ কয়েকটি পাসপোর্ট। একযোগে তল্লাশি গিরিশ পার্ক, নিউ মার্কেট, পার্ক স্ট্রিট, বেহালা সহ ৯ জায়গায়। পুলিশের দাবি, মোবাইল গেমিং অ্যাপ প্রতারণাকাণ্ডে প্রায় ডজনখানেক অফিসের হদিশ মিলেছে ।

- Advertisement -

গতকাল সুমার বাড়িতে যায় ইডি। ইডি সূত্রের খবর, গার্ডেন রিচের আমির খানের বাড়ি থেকে ১৭কোটি টাকা উদ্ধারের ঘটনায় সুমা নস্করের নাম উঠে আসে। সেই তথ্য অনুযায়ী আজ সুমার বাড়িতে হানা দেয় ইডি (ED)। সুমার সঙ্গে আমির খানের কী সম্পর্ক রয়েছে বা মোবাইল গেম দুর্নীতি ঘটনায় তার কী ভূমিকা রয়েছে এবং সে কি কাজ করতো সবই ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে। প্রসঙ্গত প্রসঙ্গত গার্ডেনরিচের ব্যবসায়ী আমির খানের বাড়ি থেকে মেলে আরও টাকার হদিশ। মোবাইল গেমিং অ্যাপের মাধ্যমে প্রতারণার তদন্তে নেমে আরও টাকার হদিশ পায় পুলিশ। প্রথম দফার তল্লাশিতে ১৭ কোটি ৩২ লক্ষ উদ্ধারের পর এবার দ্বিতীয় দফার তল্লাশিতে মিলল আরও কোটি কোটি টাকার সন্ধান। পরিবহণ ব্যবসায়ী নিসার আলির আমির খানের বাড়িতে গত ১০ সেপ্টেম্বর তল্লাশি চালায় পুলিশ। সেখানে খাটের তলা থেকে মিলেছিল বিপুল টাকার সন্ধান। ২৭ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার ফের আমির খানের বাড়িতে তল্লাশি চালায় পুলিশ। এবার ব্যবসায়ীর বাড়ি থেকে মিলল প্রায় ১৪ কোটি ৫৩ লক্ষ টাকা। ‘বিনান্স’ নামে একটি প্লাটফর্মে টাকা ট্রান্সফার করা হয়েছিল বলে সূত্র মারফত জানা যাচ্ছে। শুধু তাই নয় বিনিয়োগ করা হয়েছিল ক্রিপ্টো কারেন্সিতেও।