মদের ঠেকে বচসার জেরে খুন যুবকের, গ্রেফতার ২ বন্ধু

0
33

নিজস্ব সংবাদদাতা, পটাশপুর: মদের ঠেকে বচসার জেরে বন্ধুকে পিটিয়ে খুন করল অপর দুই বন্ধু। ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার পটাশপুর থানার রামচন্দ্রপুর গ্রামে। এই ঘটনার খবর পেতেই পুলিশ(Police) দুই অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে। জানা গিয়েছে, দুই অভিযুক্তের নাম সন্তোষ পুষ্টি ও দীপক সামন্ত। সোমবার অভিযুক্তদের কাঁথি মহকুমা আদালতে(Court) তোলা হয়। এই ঘটনার জেরে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়।

আরও পড়ুন কেন কাঁথি যাচ্ছেন অভিষেক, জানালেন শুভেন্দু

- Advertisement -

জানা গিয়েছে, সোমবার অভিযুক্তদের কাঁথি মহকুমা আদালতে(Court) তোলা হলে বিচারক তাদের জামিন নাকচ করে দেন। তাদের ৭ দিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেন। ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পর অভিযুক্তদের শাস্তির দাবিতে সোচ্চার হয়েছেন এলাকার বাসিন্দারা। দুই অভিযুক্তকে হেফাজতে নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ(Police)।

সূত্রের খবর, পটাশপুরে রামচন্দ্রপুরের বাসিন্দা সন্তোষ পুষ্টির একটি কারাখানা রয়েছে। গ্রামেরই বাসিন্দা তথা তার বন্ধু বিকাশ দে, দীপক সামন্ত সহ বেশ কয়েকজন যুবক কারাখানায় কাজ করতো। এরপর কারখানার মালিক তথা বন্ধু সন্তোষ পুষ্টির কাছ থেকে টাকা ধার নিয়ে মোবাইল কেনে বিকাশ দে। এরপর মাসে মাসে কাজ করে টাকা শোধ দেওয়ার কথা জানায়। কিন্তু কয়েক মাস কেটে গেলেও সেই টাকা শোধ হয়নি বলে অভিযোগ। এরপর ১৭ ই নভেম্বর গ্রামের একটি ফাঁকা মাঠে কয়েকজন মিলে মদ্যপান শুরু করে। তখনই টাকা শোধ দেওয়া নিয়ে বন্ধুদের সঙ্গে বচসা শুরু হয়।

সেই বচসার পরেই বেশ কয়েকজন মিলে কাঠের বাটাম নিয়ে বিকাশ দে’কে বেধড়ক মারধর করে। রক্তাক্ত অবস্থায় লুটিয়ে পড়ে সে। এরপর তাকে উদ্ধার করে পটাশপুর গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে এলে চিকিৎসক বিকাশ দে (২০)কে মৃত বলে ঘোষণা করেন। পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কাঁথি মহকুমা হাসপাতালে পাঠান। এরপর সালিশি সভাতে ঘটনাটি মিটিয়ে দেওয়ার জন্য চাপ দিতে থাকে অভিযুক্ত ব্যক্তি সহ এলাকার কিছু নেতৃত্বরা বলে অভিযোগ। কিন্তু অবশেষে সুবিচারের আশায় থানার দ্বারস্থ হন মৃত যুবকের দাদা সুভাষ দে। বেশ কয়েকজনের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগ পেয়ে তদন্ত শুরু করে পটাশপুর থানার পুলিশ। ঘটনায় যুক্ত থাকার অভিযোগে দুজন বন্ধুকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

পটাশপুর থানার ওসি রাজু কুণ্ডু বলেন, ‘অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্তে নেমে দুজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পুরো ঘটনাটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে’। যদিও তদন্তের কারণে বেশি কিছু তথ্য জানাতে রাজি হননি তিনি। মৃত যুবক বিকাশ দে-র দাদা সুভাষ দে বলেন ‘ভাইয়ের খুনীদের কঠিনতম শাস্তি চাই’।