তৃণমূলের কর্মীসভায় সিপিএমের ‘চর’! বর্ধমানে বিস্ফোরক মমতা

0
20

কলকাতা ও আসানসোল: বর্ধমানের গোদার মাঠের পর এবার আসানসোল স্টেডিয়াম৷ ফের মুখ্যমন্ত্রীর বক্তৃতা চলাকালীন উঠে দাঁড়াল কয়েকটা হাত৷ সঙ্গী প্ল্যাকার্ডে লেখা, ‘চাকরির আবেদন’! মুহূর্তে তাল কাটল বক্তৃতার৷ মেজাজ হারালেন মুখ্যমন্ত্রী৷ জানিয়ে দিলেন, ‘‘এরা সব সিপিএমের লোক!’’ স্বভাবতই, আধুনিক প্রযুক্তিতে মোড়া আসানসোল স্টেডিয়ামে রীতিমতো শোরগোল, ফিসফিসানি! তৃণমূলের কর্মীসভায় সিপিএমের লোক থুড়ি চর!

শশব্যস্ত হয়ে পড়লেন সরকারি উর্দিধারী রক্ষীরা৷ মুহূর্তে টেনেহিঁচড়ে সভাস্থল থেকে বের করা হল প্ল্যাকার্ডধারীদের৷ যার জেরে সাময়ির বিশৃঙ্খলা তৈরি হল সভাস্থলে৷ ধমক দিয়ে সেই সব থামানোর চেষ্টা করলেন নেত্রী৷ নাম না করে সিপিএমের উদ্দেশ্যে বললেন, ‘‘এদের কালচারটাই খারাপ৷ সবকিছুতে গোলমাল পাকাতেই জানে!’’

- Advertisement -

আঙুল উঁচিয়ে প্ল্যাকার্ডধারীদের উদ্দেশ্যে বললেন, ‘‘আমাকে এসব বলে লাভ নেই বাপু! আমি তো চাকরি দিতে চেয়েছিলাম৷ দিচ্ছিও৷ ওরা নিজেরা তো কোনও কাজ করেনি, আমাকেও কাজ করতে দিতে চায় না৷ তাই চাকরির বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হলেই ওরা আদালতে দৌ়ড়ায়৷’’ এই ‘ওরা’টা কারা, সেটাও স্পষ্ট করলেন৷ ইঙ্গিতে সিপিএমের বর্ষীয়ান নেতা, আইনজ্ঞ বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্যর প্রসঙ্গ মনে করিয়ে মমতা-বয়ান, ‘‘আদালতের নির্দেশে সব চাকরি আটকে আছে৷ কেন আটকে আছে, জানতে হলে সিপিএমের আইনজীবীদের কাছে যান!’’

বস্তুত, সোমবার থেকে তিনদিনের বর্ধমান সফরে এসেছেন তৃণমূল নেত্রী৷ সোমবার তাঁর সভা ছিল বর্ধমানে গোদার মাঠে৷ ভিড়ে ঠাসা সেই সমাবেশে রীতিমত প্ল্যাকার্ড তুলে মুখ্যমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করেন কয়েকজন চাকরী প্রার্থী। পুলিশ তড়িঘড়ি তাদের সভা থেকে সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে। যার জেরে সাময়িক বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়েছিল৷ যে কারণে মঙ্গলবার আসানসোলের কর্মীসভায় বাড়তি নজরদারির ব্যবস্থা করা হয়েছিল৷ তারপরও সেই সব এড়িয়ে চাকরি প্রার্থীরা কি করে ঢুকে পড়লেন দলের কর্মীসভায় তা নিয়ে প্রশাসন এবং দলের অন্দরে শুরু হয়েছে চর্চ্চা৷ এবং মুখ্যমন্ত্রী যেভাবে প্রকাশ্যেই ‘সিপিএমের লোক’ বলে চাকরি প্রার্থীদের
চিহ্নিত করতে চেয়েছেন তাতে বিষয়টি বাড়তি মাত্রা পেয়েছে৷ রাজনৈতিক মহলের একাংশ টিপ্পনি কেটে বলছেন, ‘তৃণমূলের ভরা জমানাতেও উনি সিপিএমের ভূত দেখেন, শুনেও ভাল লাগছে!’

আরও পড়ুন: অল্প বৃষ্টিতেই ভাসে এলাকা, বানভাসি তকমা কি সত্যিই ঘুচবে ঘাটালের