ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরিদর্শনে সেচ দফতর

0
33

নিজস্ব সংবাদদাতা, মালদহ: শুরু হয়ে গিয়েছে ঝড়-বৃষ্টি৷ তাই এখন থেকেই আসন্ন বন্যার কথা চিন্তা করে মালদহের ভাঙ্গন কবলিত এলাকাগুলি পরিদর্শনের কাজ শুরু করে দিলেন রাজ্য সেচ দফতরের আধিকারিকরা৷ তাঁদের সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন বিহারের সেচ দফতরের আধিকারিকরাও৷ দুই রাজ্যের সেচ আধিকারিকরা ভাঙ্গন কবলিত এলাকা ঘুরে দ্রুত কাজ সম্পন্ন করার নির্দেশ দেন৷

মালদহের মানিকচক ব্লকের ভুতনি চরের মানুষের প্রধান সমস্যা নদী ভাঙ্গন। ফুলাহার ও গঙ্গা নদীর মাঝে অবস্থিত এই ভূতনি চর। দুই নদীর সাঁড়াশি আক্রমণে প্রতিবছরই একটু একটু করে যদি গর্ভে বিলীন হচ্ছে ভিটেমাটি। ভূতনীর কেশবপুর, কালটোনটোলা এলাকায় বিগত বছরের বর্ষায় গঙ্গার দাপটে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যায় বাঁধ। তবে এই বছর বর্ষার আগেই ভাঙ্গন রোধ করতে ও ভাঙা বাঁধ এলাকায় মেরামতিতে হাত লাগিয়েছে রাজ্য সেচ দফতর।

কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে নদী তীরবর্তী এলাকায় বালির বস্তা দিয়ে চলছে কাজ। সেই কাজের অগ্রগতি খতিয়ে দেখতে বৃহস্পতিবার গোটা ভাঙ্গন রোধের কাজ পরিদর্শন করেন রাজ্য সেচ দফতরের আধিকারিকরা। উপস্থিত ছিলেন সেচ দফতরের রাজ্য সেক্রেটারি অমিত রায় সহ অন্যান্য আধিকারিক ও জেলা প্রশাসনের আধিকারিকরা।

পাশাপাশি সঙ্গে ছিলেন বিহার রাজ্যের সেচ দফতরের আধিকারিকরা। ভাঙ্গন রোধের কাজ সরজমিনে খোঁজখবর নেন সেচ দফতরের আধিকারিকরা। আগত বর্ষার আগেই যত দ্রুত সম্ভব কাজ যাতে সম্পন্ন হয় সেই নির্দেশিকা প্রশাসনিক কর্তাদের তুলে ধরেন রাজ্য সেচ দফতর আধিকারিকরা।

এপ্রসঙ্গে রাজ্য সেচ দফতরের সেক্রেটারি অমিত রায় জানান, কাজ বর্তমানে ধীরগতিতে চলছে যাতে দ্রুত কাজ হয় তার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বিহার সংলগ্ন এলাকায় তদারকি করতে বিহারের সেচ দফতর আধিকারিক এর সঙ্গে রয়েছেন। দ্রুত কাজ করে একটা ভালো জায়গায় পৌঁছাবে।

তবে ভাঙ্গনরোধে কাজে চলছে কেবল দুর্নীতি অভিযোগ তুলছেন নদী তীরবর্তী বাসিন্দারা। কোন রকম মুখ খুললে হুমকির মুখে পড়তে হচ্ছে বলে অভিযোগ তাদের। এই বস্তার কাজ করে কোনমতে ভাঙ্গন রোধ করা সম্ভব নয় বলে দাবি এলাকাবাসীর।

স্থানীয়রা জানান, প্রতিবছর ভাঙ্গন হচ্ছে। কাজ হচ্ছে কিন্তু সেই কাজের কোন রক্ষে নেই। নদীর ভাঙতে ভাঙতে গোটা এলাকা নিজের গর্ভে ধারণ করেছে। বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে প্রতিবছর ভাঙ্গন হয়৷ সেই ভাঙ্গনের কাজ করতে গিয়ে কোটি কোটি টাকা দুর্নীতি হয়। প্রশাসন নজরদারি দিয়ে ভাঙ্গন রোধে স্থায়ী সমাধান হোক দাবি এলাকাবাসীর।