বেসরকারি ব্যাঙ্কে চাকরি দেওয়ার নাম করে প্রতারণা, গ্রেফতার মূল পাণ্ডা

0
39

বিধাননগর: রাজ্যজুড়ে একাধিক প্রতারণার ঘটনা উঠে আসছে। ভুয়ো পুলিশ থেকে শুরু করে ভুয়ো সিআইডি অফিসার পাশাপাশি রয়েছে ভুয়ো হাসপাতালের কর্মী। একাধিক প্রতারণার ঘটনায় লক্ষ লক্ষ টাকা খোয়া গিয়েছে সাধারণ মানুষের। এরই মাঝে বেসরকারি ব্যাঙ্কে চাকরি দেওয়ার নাম করে প্রতারণা ঘটনা উঠে এল। এই ঘটনায় গ্রেফতার করা হয়েছে মূলপাণ্ডাকে। ধৃতকে গ্রেফতার করে বিধাননগর সাইবার ক্রাইম থানার পুলিশ।

জানা গিয়েছে, ২০২০ সালের মার্চ মাসে বেসরকারি ব্যাঙ্কে চাকরির জন্যে আবেদন করেন সল্টলেকের বাসিন্দা সুপ্রিয়া লাহিড়ী। জুলাই মাসে তার কাছে একটি ফোন আসে এবং তাকে সেই ব্যাঙ্কের কর্মী অভিজিৎ বলে ফোনে সেই এক ব্যক্তি পরিচয় দেয়। সেই ফোন মারফত ব্যক্তিটি মহিলাকে জানায় তিনি যে চাকরির জন্যে আবেদন করেছিলেন সেই চাকরি পাওয়ার জন্যে তাকে প্রসেসিং ফি বাবদ ৪২০০০ টাকা দিতে হবে।

- Advertisement -

এরপরে সেই মোতাবেক সল্টলেকের বাসিন্দা ওই মহিলা সেই টাকা অভিযুক্তের ব্যাঙ্কে ট্রান্সফার করে দেয়। তবে তার কিছুদিন পর থেকে সেই ব্যক্তি যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়। পরবর্তীতে মহিলা সেই বেসরকারি ব্যাঙ্কের সঙ্গে যোগাযোগ করলে মহিলা জানতে পারেন, ব্যাঙ্কের পক্ষ থেকে এই ধরনের ফোন কোনও করা হয়নি বা টাকা নেওয়া হয়নি। এরপরই প্রতারিত হয়েছেন বুঝতে পেরে বিধাননগর সাইবার ক্রাইম থানার দ্বারস্থ হন মহিলা।

তারপরে ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ সালে ওই মহিলা লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন থানায়। সেই অভিযোগ পেয়ে তদন্ত শুরু করে বিধাননগর সাইবার ক্রাইম থানার পুলিশ। এরপরে গতকাল রাতে রানাঘাট থেকে অভিযুক্ত সুকুমার মহন্তিকে গ্রেফতার করে পুলিশ। আজ অভিযুক্তকে বিধাননগর মহকুমা আদালতে তোলা হয়েছে।

পুলিশ সুত্রের খবর, সুকুমার ব্যাঙ্ক থেকে ডেটা জোগাড় করে ভিন্ন ভিন্ন নাম ব্যবহার করে এই ধরনের ফোন করত এবং চাকরি প্রার্থীদের থেকে টাকা প্রতারণা করত। পুলিশ অভিযুক্তকে নিজেদের হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার আবেদন জানাবে বলে পুলিশ সূত্রে খবর। এই ব্যক্তি ব্যাংকের ডেটা কোথা থেকে পেলো? এই চক্রের সঙ্গে ব্যাঙ্কের কোনও ব্যক্তির যোগ রয়েছে কিনা, সেই বিষয়ে তদন্ত করে দেখছে বিধাননগর সাইবার ক্রাইম থানার পুলিশ।