সরকারি আতিথেয়তায় এলাহি আয়োজন, বাঁকুড়ার জঙ্গলে পাতপেড়ে খাবার খাচ্ছে হাতির পাল

0
15

তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: জঙ্গল লাগোয়া গ্রামে হাতির হানা ঠেকাতে নয়া উদ্যোগ বন দফতরের! দলমার দামালদের জন্য জঙ্গলে পাত পেড়ে খাওয়ার আয়োজন করল রাজ্য সরকার৷ ফলে সরকারি আতিথেয়তায় বাঁকুড়ার জঙ্গলে পাতপেড়ে খাবার খাচ্ছে হাতির দল! যা দেখতে প্রতিদিনই হাজারে হাজারে মানুষ ভিড় করছেন জঙ্গলে৷

কথাটা শুনতে অবাক লাগলেও ‘হাতি সমস্যা সমাধানে’ এমনই উদ্যোগ নিয়েছে বাঁকুড়া উত্তর বনবিভাগ। তাদের জন্য প্রতিদিন নির্দিষ্ট জায়গায় পৌঁছে যাচ্ছে পছন্দের খাবার! বন দফতর সূত্রে খবর, বড়জোড়া রেঞ্জ এলাকায় এই মুহূর্তে ১০ টি হাতি রয়েছে। উৎসবের মরশুমে ওই হাতিগুলিকে এক জায়গায় আটকে রাখতে শীতলা বীটের বাঁদকোনা জঙ্গলে বৈদ্যুতিক বেড়া তৈরি করা হয়েছে। আর সেখানে নির্দিষ্ট সময় অন্তর পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে লাউ, কুমড়া, শশা, গলা গাছের মতো হাতিদের পছন্দের খাবার। সঙ্গে হাতিদের শরীরে লবনের পর্যাপ্ত জোগান রাখতে বিভিন্ন জায়গায় রাখা রয়েছে লবনের বস্তাও। একেবারে নাগালের মধ্যে খাবার পেয়ে খুশী হস্তীকূলও।

- Advertisement -

বনকর্মী প্রদ্যোৎ আখুলী বলেন, ‘‘এই জঙ্গলে এই মুহূর্তে ১০টি হাতি আছে। ওদের হামলা রুখতে আমরা খাবার দিচ্ছি৷ এর ফলে হামলাও অনেক কমে গিয়েছে৷ সরকার এটাই চেয়েছিল৷’’ একই সঙ্গে তাঁর সংযোজন, ‘‘মানুষ বা গরু বাছুর তো নয় যে বেঁধে রেখে দেব৷ তাই ঘেরা জায়গার মধ্যে ২৪ ঘণ্টায় খাবার দেওয়া হচ্ছে৷ বনের মধ্যে আটকে রাখার চেষ্টা৷ তারপরও মাঝেমধ্যে দু’ একটা হাতি রাতের বেলা জঙ্গলে যাচ্ছে৷ তবে আগের থেকে ক্ষয়ক্ষতি অনেকটাই আটকানো গিয়েছে৷’’

লাল মাটির জেলা বাঁকুড়ার উত্তরাংশে প্রায় সারা বছর পরিযায়ী হাতিদের আনাগোনা লেগেই থাকে। জঙ্গলে প্রয়োজনীয় খাবারের অভাব থাকায় প্রায়শই লোকালয়ে ঢুকে পড়ে হাতির দল। ফলে চরম আতঙ্কে থাকেন গ্রামের মানুষ। সম্পত্তিহানির পাশাপাশি প্রাণহানির ঘটনাও ঘটে কখনও কখনও। তাই হাতির হানা রুখতে জঙ্গলে বৈদ্যুতিক বেড়া তৈরি করে সেখানেই এলাহি আয়োজনের ব্যবস্থা করা হয়েছে৷ যা দেখতে প্রতিদিনই হাজারে হাজারে মানুষ ভিড় করছেন জঙ্গলে৷

আরও পড়ুন: ভাঙড়ে উলোট পুরাণ, তৃণমূলের মিছিল থেকে স্লোগান উঠল, ‘তৃণমূল সরকার, আর নেই দরকার’