সমাপ্ত সরকারি বাস ডিপোর নির্মাণ কাজ, উদ্বোধন না হওয়ায় বিক্ষোভ বাসিন্দাদের

0
29

চাঁচল: ছয়মাস হয়ে গিয়েছে শেষ হয়েছে নির্মাণ কাজ। তারপরেও তালা বন্দি অবস্থায় পড়ে রয়েছে উত্তরবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহণ সংস্থার বাস ডিপো। আর এই নিয়েই ক্ষোভ দেখা দিয়েছে জমি দাতা থেকে শুরু করে বাসিন্দাদের মধ‍্যে। দ্রুত বাস ডিপো চালু করা হোক এই দাবি নিয়ে বৃহস্পতিবার সকালে মালদহের চাঁচলের কলিগ্রামে অবস্থিত উত্তরবঙ্গীয় রাষ্ট্রীয় পরিবহন সংস্থার নবনির্মিত বাস ডিপোর সামনে বিক্ষোভ দেখালেন স্থানীয় বাসিন্দারা। আর এই ডিপো স্থানন্তারন নিয়ে শুরু হয়েছে তৃণমূল-বিজেপির রাজনৈতিক তর্জা।

আরও পড়ুন-ত্রিপুরা কংগ্রেসে আবার ভাঙ্গন, শীর্ষনেতারা যোগ দিলেন তৃণমূলে

- Advertisement -

প্রসঙ্গত, বর্তমানে উত্তরবঙ্গীয় রাষ্ট্রীয় পরিবহণ সংস্থার সরকারি বাস ডিপো রয়েছে ৮১ নং জাতীয় সড়কের ধারে চাঁচল শহরে। কয়েক দশক ধরে ভাড়া জায়গাইতেই চলে আসছে এই ডিপো। বর্তমানে এই ডিপোর বেহাল দশা। গ‍্যারেজ থেকে শুরু করে বাস পার্কিং এবং অফিস সর্বত্র বেহাল চিত্র। শেষমেশ পরিবহন দফতরের পক্ষ থেকে সেই ডিপো থেকে তিন কিমি দূরে কলিগ্রামে সরকারি জমিতে নির্মাণ করা বাস ডিপো।

সেই ডিপোর নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে প্রায় ছয়মাস হল। কিন্তু তারপরেও থমকে রয়েছে বাস ডিপো উদ্বোধনের কাজ। তালাবন্দি অবস্থায় পড়ে রয়েছে সরকারি ডিপো। ফলে সামনের অংশ দখলে যাচ্ছে ঠিকাদারি সংস্থার বালি ও পাথরের। যা নিয়ে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে এলাকার মানুষজনের মধ‍্যে।

আরও পড়ুন-ফের ভারতে বেআইনি অনুপ্রবেশ, গ্রেফতার বাংলাদেশী নাগরিক

এপ্রসঙ্গে বিক্ষোভকারী অশোক রায় চৌধুরী বলেন, “রাজনৈতিক গড়িমসির কারণেই ডিপোর উদ্বোধনী কাজ থমকে রয়েছে। ডিপো চালু হলে গোটা চাঁচল এলাকার মানুষের সুবিধা হবে। দ্রুত ডিপো চালু হোক সেই দাবিতে আজ বিক্ষোভ ও ডিপো ইনচার্জ ও মহকুমাশাসকের কাছে লিখিত আকারে কর্ণগোচরে তুলে ধরলাম।”

যদিও ডিপো স্থানান্তরণ নিয়ে শুরু হয়েছে রাজনৈতিক তর্জা।ক লিগ্রাম গ্রাম পঞ্চায়েতের বিজেপি দলনেতা সুভাষ কৃষ্ণ গোস্বামী অভিযোগ করে বলেন, “আমরা শুনেছিলাম একুশের বিধানসভা নির্বাচনের আগে উদ্বোধন কলিগ্রামের এনবিএসটিসি বাস ডিপো। কিন্তু তখন হল না। কারণ, সেই মুহূর্তে নির্বাচন। উদ্বোধন হলে নাকি ওখানে তৃণমূলের ভোট কমে যাবে। তাই রাজনৈতিক চক্রান্তের শিকারের আজও থমকে রয়েছে উদ্বোধনী কাজ।”

যদিও বিজেপি নেতার এই মনগড়া দাবিকে কটাক্ষ করেছেন চাঁচল ডিপো আইএনটিটিইউসির সম্পাদক গোলাম রসুল। তিনি বলেন, “কলিগ্রামকে নিয়ে পশ্চিমবঙ্গ চলে না। লকডাউনের পর থেকেই বিপর্যস্ত জনজীবন। তাই সময়মতো উদ্বোধন হয়নি। ডিপো যখন নির্মাণ হয়েছে তা চালুও হবে। তবে সেটা কবে চালু হবে তা আমাদের অজানা।” যদিও এই বিষয়টি নিয়ে চাঁচলের ডিপো ইনচার্জ জগেশ চন্দ্র বর্মণ কোনও মন্তব্য করতে চাননি। চাঁচলের মহকুমা শাসক কল্লোল রায় জানিয়েছেন, দাবি দাওয়ার ভিত্তিতে একটি লিখিত পেলাম। বিষয়টি পরিবহন দফতরে তুলে ধরা হবে।