টেট শেষে কী বললেন শিক্ষামন্ত্রী

0
82
bratya basu on tet exam

কলকাতা: টেট পরীক্ষা (tet exam) সুষ্ঠুভাবে ও স্বচ্ছতার সঙ্গে সম্পন্ন হয়েছে। এই পরীক্ষা অত্যন্ত ইতিবাচক ও ফল্প্রসু। আগামীদিনে বার্তা দেবে। পরীক্ষা শেষে জানালেন রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু। বিরোধীদের একাংশ গোলযোগ পাকানোর চেষ্টা করেছিল। প্রাইমারি শিক্ষা পর্ষদকে ধন্যবাদ। কন্ট্রোল রুমের সঙ্গে যোগাযোগ রেখেছি। জাল প্রশ্নপত্র ছড়ানো হয়েছিল। তৎপরতার সঙ্গে প্রাইমারি শিক্ষা পর্ষদ সাইবার সেলকে জানায়। পড়ে দেখা যায় পুর প্রশ্নপত্রটাই জাল। নিয়োগ ক্ষেত্রে একমাত্র আমাদের মুখ্যমন্ত্রী পারেন স্বচ্ছতা আনতে। কোর্টের নির্দেশ মেনে আমরা নিয়োগ করছি। এই বছর প্রথমবার দুটো ওএমআর শিট দেওয়া হয়েছে। এটি স্বচ্ছতা আনবে। সমস্ত পরীক্ষার্থীদের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। বললেন শিক্ষামন্ত্রী। এদিকে পরীক্ষা কেন্দ্র ঘুরে দেখলেন প্রাইমারি শিক্ষা পর্ষদের সভাপতি গৌতম পাল।

আরও পড়ুন :হায় কপাল, ৫ বছর পর মিলেছিল সুযোগ, শেষমুহূর্তে টেট পরীক্ষা হাতছাড়া শিলিগুড়ির ডলির

- Advertisement -

প্রসঙ্গত টেট পরীক্ষার্থীরা অধিকাংশই মুর্শিদাবাদের। বায়োমেট্রিক পরীক্ষার মাধ্যমে পরীক্ষাকেন্দ্রে প্রবেশ করতে পারবেন চাকরিপ্রার্থীরা। টেট পরীক্ষা (tet exam) বানচাল করার চেষ্টা চলছে। বোর্ডের কাছে এই তথ্য হাতে এসেছে। তবে প্রশাসন সতর্ক রয়েছে। আগেই জানিয়ে ছিলেন পর্ষদ সভাপতি।এই বছর পরীক্ষার প্রশ্নপত্র বাড়ি নিয়ে যেতে পারবেন টেট (tet) পরীক্ষার্থীরা। আসল ওএমআর শিটটি (OMR Sheet) জমা দেওয়ার পর ডুপ্লিকেট ওএমআর শিটটি (OMR Sheet) বাড়ি নিয়ে যেতে পারবেন তাঁরা। এপিসি ভবনে থাকবে সেন্ট্রাল কন্ট্রোল রুম। অধিকাংশ পরীক্ষাকেন্দ্রগুলি সেখান থেকেই কন্ট্রোল করা হবে। বাকিগুলি সিসিটিভি ক্যামেরার নজরদারিতে রাখা হবে। পর্ষদ থেকে পরীক্ষার্থীদের সুবিধার জন্য হেল্পলাইন নম্বর ৬২৯২২৭৮৪৩৮ জারি করা হয়।

আরও পড়ুন :সরকারি প্রকল্প থেকে নগদ টাকা, গয়না ভালোবাসলে মিলবে সব কিছুই, চাঞ্চল্যকর অভিযোগে কোণঠাসা শাসকদল

যদিও টেট পরীক্ষা (tet exam) কেন্দ্রের বাইরে ব্যবস্থা নিয়ে নানা অভিযোগ উঠেছে। পরীক্ষাকেন্দ্রের প্রায় ১০০ মিটারের মধ্যে পরীক্ষার্থী ছাড়া আর কারোর প্রবেশাধিকার নেই। ফলে ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা। তাঁদের বক্তব্য, “পরীক্ষার্থীদের জন্য সব ব্যবস্থা রাখা হয়েছে ঠিক কথা। কিন্তু তাঁদের সঙ্গে আসা অভিভাবকদের বাইরে বসার কোনও ব্যবস্থা নেই। রাস্তায় ঘন্টার পর ঘন্টা দাঁড়িয়ে থাকতে হচ্ছে।“ বসার ব্যবস্থা তো দুর শৌচালয়ের ব্যবস্থা পর্যন্ত নেই। এই ছবি হাওড়া জিলা স্কুলের।

tet exam center visit by goutam pal