পরীক্ষা বাতিল নয়, চলবে, জানালেন পর্ষদ সভাপতি

এই ঘটনা পরীক্ষার্থীদের উপর কোন প্রভাব ফেলবে না

0
41
goutam paul

কলকাতা : সোমবার থেকেই শুরু হয়েছে ডিএলএড পরীক্ষা (d.el.ed exam)। আর শুরুতেই জুড়ল বিতর্ক। পরীক্ষার প্রথম দিনেই ফাঁস প্রশ্নপত্র। উঠছে এমনই অভিযোগ। প্রশ্নপত্র ফাঁস নিয়ে মুখ খুললেন পশ্চিমবঙ্গ প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের সভাপতি গৌতম পাল।

আরও পড়ুন : ‘কোলে বসে গান গাইবে’, ১৬ লক্ষ টিকিটের দাম দেখে ট্রোলের শিকার Arijit Singh

- Advertisement -

তিনি জানালেন এই বিষয়ে এখনও পর্যন্ত কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। এই ঘটনায় ইতিমধ্যেই তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তিনি নিশ্চিন্ত করেছেন, এই ঘটনা পরীক্ষার্থীদের উপর কোন প্রভাব ফেলবে না। পরীক্ষার্থীদের পক্ষে বোর্ড যে কোন সময় গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিতে পারে। পরীক্ষা চলবে। পরীক্ষা বাতিলের কোন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। এই বিষয়ে বিশেষজ্ঞ কমিটির সঙ্গে কথা বলা হবে। প্রমাণের ভিত্তিতে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সবাই প্রশ্নপত্র জেনে পরীক্ষায় বসেছে এটা মানতে পারছি না। কয়েকটা প্রশ্নের ফোটোকপি করা হয়েছিল। বললেন সভাপতি গৌতম পাল

আরও পড়ুন : বেত, বাঁশকে পেছনে ফেলে বাজার  কাঁপাচ্ছে এখন প্লাস্টিকের লাটাই

আরও পড়ুন : মৃত বান্ধবীর আংটি খুলে নতুন বান্ধবীকে উপহার, শ্রদ্ধা খুনে আফতাবের নৃশংসতায় হতবাক পুলিশও

প্রসঙ্গত প্রাথমিক শিক্ষক হওয়ার জন্য এই ডিএলএড  পাঠক্রমের মাধ্যমেই প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। দু বছরের এই কোর্সে চারটি সেমেস্টারে নেওয়া হয় পরীক্ষা। এদিন দুপুর ১২ টা থেকে পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু অভিযোগ তার এক ঘণ্টা আগেই সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়। যদিও এই ঘটনা কতটা সত্যতা নিয়ে ধন্ধ রয়েছে। তবে অধিকাংশ পরীক্ষার্থীদের দাবি ফাঁস হওয়া প্রশ্নপত্রগুলি আজকেরই। সোমবার এডুকেশনাল স্টাডিস(CC02) বিষয়টির পরীক্ষা ছিল। সেই বিষয়ের ডিএলএড পরীক্ষার (d.el.ed exam)  প্রশ্নপত্রই ফাঁস হয়েছে বলে অভিযোগ। উল্লেখ্য, ডিএলএড পরীক্ষায় বদল এনেছে প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ। ডিএলএড কলেজের বদলে রাজ্যের স্কুল এবং সরকারি কলেজে পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। রাজ্যে ৬০০ টির বেশি ডিএলএড কলেজ রয়েছে। প্রতি সেমেস্টারে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা থাকে প্রায় ৪৫ হাজার। নভেম্বরের শেষ সপ্তাহের ডিএলএড পরীক্ষায় পরীক্ষার্থীদের সংখ্যা ৪৫ হাজার।