মানুষের পর এবার শুরু কুকুরদের Vaccine দেওয়ার কাজ

0
46
dog vaccine

কাঁথি: আদর করে পোষ্যকে কাছে টেনে নিতে কে না ভালবাসেন! কারোর পছন্দ কুকুর, কারোর বা বিড়াল। রাস্তার কুকুর বা পোষ্য যাই হোক না কেন, পশুপ্রেমীদের কাছে সবই সমান। কিন্তু মুশকিল হল, এই করোনা আবহে পোষ্যরাও কিন্তু বিপদের বাইরে নেই। সেকারণেই এবার রাস্তায় ঘোরাফেরা করা সমস্ত কুকুরদের ভ্যাকসিন(Vaccine) দেওয়ার উদ্যোগ নিল কাঁথির একটি ক্লাব। এই উদ্যোগ শুধু পূর্ব মেদিনীপুর নয় এই রাজ্যে সর্বপ্রথম বলে দাবি পশু চিকিৎসকের।

সারাদিনের সমস্ত খবরের আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন খাস খবর অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ: https://play.google.com/store/apps/details?id=app.aartsspl.khaskhobor

- Advertisement -

বিস্তারিত খবর, লাইভ ভিডিও সহ সমস্ত রকম আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ: https://www.facebook.com/khaskhobor2020

সাধারণ মানুষের পর কুকুর। বিগত দিনে করোনা মহামারীর সময়ে সমস্ত মানুষদের ভ্যাকসিন(Vaccine) দেওয়া হয়েছে। তাতে সাফল্য এসেছে। এবার তাই রাস্তায় ঘুরে বেড়ানো সমস্ত কুকুরদের ভ্যাকসিন দেওয়ার কথা উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। শুক্রবার সকাল থেকেই শহরে বিভিন্ন প্রান্তে সমন্ত কুকুরদের ভ্যাকসিন দেওয়ার কাজ শুরু হয়েছে। এরফলে অনেকটাই জলাতঙ্ক রোগ থেকে মুক্তি পাবে শহরবাসী।

আরও পড়ুনঃ পাঞ্জাব জয়ে আত্মবিশ্বাসী AAP, কেজরিওয়ালের লক্ষ্য মোদীর রাজ্য গুজরাট দখল নেওয়ার

অভিনব উদ্যোগে কাঁথির এই ক্লাবের পাশে এগিয়ে এসেছে পূর্ব মেদিনীপুর জেলা কাঁথি ১ ব্লকের প্রাণী দফতর এবং কাঁথি পুরসভা। পাশাপাশি, এগিয়ে এসেছে কয়েকটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনও। গত কয়েক মাস ধরে কাঁথি শহরে বিভিন্ন এলাকায় সমস্ত কুকুরদের ভ্যাকসিন দেওয়া হবে।

ক্লাবের সভাপতি সুস্মিত মিশ্র বলেন, “আমরা এর আগে সাধারণ মানুষের স্বার্থে করোনা ভ্যাক্সিনেশন করেছি। সাধারণ মানুষের দাবি মেনেই কাঁথি শহরে কুকুরের ভ্যাকসিন প্রক্রিয়া শুরু করেছি। কাঁথি পুরসভা ও প্রাণী দফতর আধিকারিকে সঙ্গে কথা বলে প্রথম পর্যায়ে কাঁথি শহরে ১০০০ হাজার কুকুরকে ভ্যাক্সিনেশন দেওয়া হবে। শুধুমাত্র কুকুর নয়, পাশাপাশি ছাগল ও গরুর ভ্যাক্সিনেশন করবো। প্রত্যেকদিন ধাপে ধাপে সমস্ত কুকুরদের ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। কাঁথি পুরসভা ও প্রাণী দপ্তরের আধিকারিকের কাছে এমন কোন তথ্য নেই কত সংখ্যক কুকুর রয়েছে। এরফলে জলাতঙ্ক আতঙ্ক থেকে মুক্তি পাবে কাঁথি শহরবাসী।”

কাঁথি প্রাণী দফতরের আধিকারিক ডঃ অপূর্ব চক্রবর্তী বলেন, “এটা সত্যি খুবই অভিনব উদ্যোগ। কাঁথি লায়ন্স ক্লাব ও পুরসভার এই উদ্যোগকে স্বাগত জানাই। এই অভিনব উদ্যোগ ভারতবর্ষের প্রথম। কাঁথি শহরের সমস্ত কুকুরের ভ্যাকসিন দুই থেকে আড়াই মাসের এই প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ হবে। প্রত্যেক বছর যাতে এই ভ্যাকসিন করা যায় তার ব্যবস্থা করা হবে।” কাঁথি লায়ন্স ক্লাবের এই মহতি উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন কাঁথি শহরের বাসিন্দারা।