বিজ্ঞাপনের হোর্ডিংও আর নিরাপদ নয়, ভেঙে পড়ল পথচারীর মাথায়

0
71

খাস প্রতিবেদন: মোকার সাইডেফেক্ট৷ কেউ বা হাওয়া অফিসের তারিফ করছেন৷ কারণ, পূর্বাভাস মেনে তীব্র দহনের হাত থেকে সাময়িক স্বস্তি মিলেছে বঙ্গবাসীর৷ বাঁকুড়া, মেদিনীপুর, হাওড়া সহ দক্ষিণবঙ্গের একাধিক জেলায় এদিন বিকেল থেকে শুরু হয়েছে বৃষ্টি৷ সঙ্গী হিসেবে হাজির ঝোড়ো হাওয়া৷ যার ফলে একদিকে যেমন গরমের হাত থেকে মুক্তি পেয়ে মানুষ হাফ ছেড়ে বেঁচেছেন, তেমনি ঝোড়ো হাওয়ার দাপট কারও বা টিনের চালা উড়িয়ে চোখের পলকে করেছে নিরাশ্রয়৷ কেউ বা রাস্তায় বেরিয়ে উটকো বিপদের মুখোমুখি হয়েছেন৷ উঁচু থেকে মাথায় ভেঙে পড়েছে বিজ্ঞাপনী হোর্ডিং৷ ঝড় জলের দাপটে মঙ্গলকোটে বাতিলের মুখে তৃণমূলের সভা৷ ঝড় জলের দাপটে ভাতার থেকে মঙ্গলকোট যাওয়ার পথে রাস্তায় আটকে পড়েছেন তৃণমূলের যুবরাজ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ও৷

বস্তুত, গত কয়েক দিনের ধারাবাহিকতা মেনে এদিনও দক্ষিণবঙ্গের বিস্তৃর্ণ এলাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের উপরেই ছিল৷ সঙ্গে বাতাসের গরম হলকা৷ সবমিলিয়ে দিনের বেলায় রাস্তায় যেন আগুন ছুটছিল৷ দুপুর সাড়ে তিনটের পর থেকে পরিস্থিতি বদলাতে শুরু করে৷ কিছুক্ষণ পরেই ঘন কালো মেঘে ঢেকে যায় আকাশ৷ তারপরই ঝমঝমিয়ে বৃষ্টি৷ সঙ্গী ঘণ্টায় প্রায় ৪০ কিমি বেগে বয়ে চলা ঝোড়ো হাওয়া৷ আর সেই ঝড়ের দাপটেই বাঁকুড়া শহরের কেরানীবাঁধ এলাকায় ভেঙে পড়লো বেসরকারি সংস্থার বিজ্ঞাপনী হোর্ডিং। সোমবার বিকেলে বাঁকুড়া শহরের কেরানীবাঁধ এলাকার এই ঘটনায় জখম তিন জন৷ একাধিক বাড়ির ক্ষয়ক্ষতির পাশাপাশি একই সঙ্গে একটি রাষ্ট্রায়ত্ত্ব ব্যাঙ্কের গ্রাহক পরিষেবা কেন্দ্রেরও ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বলে জানা গেছে। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্য নান্টু গরাই, টুকুন গরাই, সন্দীপ গরাইরা বলেন, কিছু বুঝে ওঠার আগেই বিজ্ঞাপনী হোর্ডিং ভেঙে পড়ে। দোকানে থাকা কম্পিউটার, প্রিন্টার, জেরক্স মেশিন, অন্যান্য যন্ত্রপাতি সহ তিনটি মোটর বাইক ভেঙে গেছে বলে তারা জানান।

- Advertisement -

ঝড় জলের দাপট দেখা গিয়েছে মেদিনীপুর, হাওড়া, বর্ধমান সহ একাধিক জেলায়৷ ফলে এদিনের তীব্র ঝড় বৃষ্টির জেরে গত কয়েক দিনের তীব্র তাপপ্রবাহ আর প্যাচপ্যাচে গরম থেকে খানিক স্বস্তি পেয়েছেন আমজনতা৷ কিন্তু মাঠে থাকা সবজির জন্য নতুন করে দুশ্চিন্তা তৈরি হয়েছে চাষিদের৷ একইভাবে গ্রামাঞ্চলে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে টিন বা খড়ের ছাউনি দেওয়া একাধিক বাড়ি৷ ঝড় নতুন করে তাঁদেরকে বিপদের মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে দিয়েছে৷ বেশ কয়েকটি এলাকায় ছিঁড়ে পড়েছে বৈদ্যুতিক তারও৷ তবে হতাহতের কোনও খবর এখনই নেই৷

আরও পড়ুন: ঠোঁট নয়, পেটের দায়ে নাক দিয়ে বাঁশি বাজান এই তরুণ