Amit Shah: বাংলায় মর্মান্তিক পথদুর্ঘটনায় ১৮ জনের মৃত্যু, বাংলায় টুইট করে শোকপ্রকাশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর

হাঁসখালি থানার পুলিশ কোনওরকমে তাদেরকে উদ্ধার করে শক্তিনগর জেলা হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে চিকিৎসকরা ১৮ জনকে মৃত বলে ঘোষণা করে। বাকিরা আশঙ্কাজনক অবস্থায় শক্তিনগর জেলা হাসপাতালে ভরতি।

0
168

নয়াদিল্লি: শনিবার রাতে পরিবারের একজনের শেষকৃত্য করে ফেররা পথেই ভয়াবহ পথদুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন নদিয়ার ১৮ জন। মর্মান্তিক ঘটনায় শোকস্তব্ধ গোটা এলাকা। বাংলার সেই ঘটনায় শোকপ্রকাশ করেছেন দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। পরিবাররে প্রতি সমবেদনা জানিয়ে বাংলায় টুইট করেছেন শাহ।

পশ্চিমবঙ্গের নদিয়া জেলার ঘটনা নিয়ে শোকপ্রকাশ করে অমিত শাহ টুইট করে লিখেছেন, “পশ্চিমবঙ্গের নদীয়া জেলায় ঘটে যাওয়া পথ দুর্ঘটনা অত্যন্ত দুঃখজনক। এই দুর্ঘটনায় প্রাণ হারানো মানুষদের প্রতি আমার সমবেদনা রইল। ঈশ্বর ওনাদের এই কঠিন পরিস্থিতিতে সহায় হোন। আহতদের দ্রুত আরোগ্য কামনা করছি।” গভীর রাতে মর্মান্তিক পথ দুর্ঘটনায় ১৮ জনের মৃত্যুর সঙ্গে আহত হয়েছেন আরও পাঁচজন। ঘটনাটি ঘটেছে নদীয়ার হাঁসখালি থানার ফুলবাড়ী এলাকার রাজ্য সড়কে।

সূত্রের খবর, গতকাল রাতে উত্তর ২৪ পরগনার বাগদা থানা এলাকা থেকে একটি মৃতদেহ দাহ করার উদ্দেশ্যে নবদ্বীপ শ্মশান রওনা দেয় প্রায় ৩০ জন । শেষকৃত্যের জন্য রাত ১২টা নাগাদ যখন নদীয়ার হাঁসখালি থানার ফুলবাড়ী এলাকা দিয়ে ওই ম্যাটাডোরটি যাওয়ার সময় এলাকায় একটি পাথর বোঝাই লরি দাঁড়িয়েছিল। আচমকা দাঁড়িয়ে থাকা লরি টিকে সজোরে ধাক্কা মারে ম্যাটাডোর। গাড়িটি থেকে মানুষজন ছিটকে সাইডে পড়ে যায়। তাতেই ঘটে যায় মর্মান্তিক ঘটনা।

ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় ১৮ জনের। গভীর রাতে পথ দুর্ঘটনা হওয়ার কারণে সেভাবে কেউ তড়িঘড়ি উদ্ধার করতে আসেনি। পরে এই ঘটনায় খবর পেয়ে স্থানীয় বাসিন্দা এবং হাঁসখালি থানার পুলিশ কোনওরকমে তাদেরকে উদ্ধার করে শক্তিনগর জেলা হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে চিকিৎসকরা ১৮ জনকে মৃত বলে ঘোষণা করে। বাকিরা আশঙ্কাজনক অবস্থায় শক্তিনগর জেলা হাসপাতালে ভরতি। এই ঘটনায় স্থানীয়দের দাবি, ঘন কুয়াশা এবং গাড়িটি গতিবেগ অতিরিক্ত থাকার কারণে এই দুর্ঘটনা। তবে পুলিশের অনুমান চালক মতদ্যপ ছিলেন। পুরো বিষয়টি তদন্ত শুরু করেছে হাঁসখালি থানার পুলিশ। এই ঘটনায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে গোটা এলাকায়।