নখ আছে ধার নেই! বাংলা-ওড়িশার বুকে প্রভাবহীন, তা সত্ত্বেও মোকা মোকাবিলায় প্রস্তুত দিঘা

0
56
mocha

খাসডেস্কঃ বাংলা-ওড়িশায় বিশেষ একটা প্রভাব ফেলবে না মোকা (mocha)। জানিয়েছে আবহাওয়া দফতর। তাই বলে প্রস্তুতিতে কসুর নেই কোন। আগাম সতর্কতা হিসেবে দিঘায় আটটি দল এবং ২০০ জন উদ্ধারকারী পাঠিয়েছে জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী। প্রস্তুত রয়েছে উপকূলরক্ষীবাহিনীও।

আরও পড়ুন :কাড়ি কাড়ি টাকা, ত্রিপুরা গণধর্ষণ কাণ্ডে অভিযুক্তের বাড়ি থেকে উদ্ধার ৯০ লাখ

- Advertisement -

দিঘায় খোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুম। দিঘা-শঙ্করপুর উন্নয়ন পর্ষদের মূল প্রশাসনিক ভবনে খোলা হয়েছে জেলা পর্যায়ের কন্ট্রোল রুম। এ ছাড়াও ২৫টি ব্লক এবং ২২৩টি পঞ্চায়েতে কন্ট্রোল রুম চালু করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কলকাতায় লালবাজারে কন্ট্রোলরুম খুলে নজর রাখছে পুলিশও।

আরও পড়ুন :নিউটাউনে হানা তামিলনাড়ু পুলিশের, গ্রেফতার ১

আরও পড়ুন :প্রাকাশিত হল CBSE-র দ্বাদশ শ্রেণির ফলাফল, বিশেষ কারণে প্রাকাশ করা হয়নি মেরিট লিস্ট

মোকার খবর শুনে  অনেকেই দিঘার টিকিট বাতিল করেছেন। কিন্তু যে সব পর্যটক ইতিমধ্যে পৌঁছে গিয়েছেন সৈকতনগরীতে তাঁদেরকে সাবধান করেছে পূর্ব মেদিনীপুর প্রশাসন। দিঘায় বেশ পর্যটকদের ভিড় রয়েছে। বেলা বাড়তেই আংশিক মেঘলা আকাশ কাটিয়ে বেড়েছে রোদের তেজ। সমুদ্রে বেশ শান্ত। নেই উথাল পাথাল ঢেউ। তা সত্ত্বেও সতর্ক প্রশাসন। বিভিন্ন ওয়াচ টাওয়ার থেকে চলছে নজরদারি। সৈকত ধরে চলছে একনাগারে প্রচার। পূর্ব মেদিনীপুরের জেলাশাসক পূর্ণেন্দু মাজি ইতিমধ্যেই জেলার ২৫টি ব্লকের বিডিওদের নিয়ে ঘূর্ণিঝড়ের আগাম প্রস্তুতি সংক্রান্ত জরুরি বৈঠক করেন।

আরও পড়ুন :

মৌসম ভবনের বুলেটিন জানিয়েছে, শক্তি বাড়িয়ে অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়েছে মোকা। দক্ষিণ-পূর্ব বঙ্গোপসাগরের মাঝামাঝি জায়গায় অবস্থান করছে।  বর্তমানে পোর্ট ব্লেয়ার বন্দর থেকে ৫২০ কিলোমিটার পশ্চিম-উত্তর পশ্চিমে এবং বাংলাদেশের কক্সবাজার থেকে ১০১০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণ পশ্চিমে রয়েছে মোকা । রবিবার দুপুর নাগাদ বাংলাদেশের কক্সবাজার এবং মায়ানমারের কাউকপুরের মধ্যে দিয়ে দক্ষিণ-পূর্ব বাংলাদেশ এবং মায়ানমার উপকূলে আছড়ে পড়ার কথা মোকার (mocha)। ওই সময় ঝড়ের গতি হতে পারে ঘণ্টায় ১৫০-১৬০ কিলোমিটার। সর্বোচ্চ গতিবেগ হতে পারে ১৭৫ কিলোমিটার।