মঙ্গলবার তৃতীয় দফার ভোট, মোতায়েন ৬১৮ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী

হাওড়া, হুগলি এবং দক্ষিণ ২৪ পরগনার ৩১ টি আসনে ভোট

0
226

কলকাতা: আগামী ৬ এপ্রিল মঙ্গলবার তৃতীয় দফা ভোট৷ ওই দিন হাওড়া, হুগলি এবং দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ভোট। ইতিমধ্যেই প্রথম ও দ্বিতীয় দফায় মোট ৬০ টি আসনে ভোট গ্রহণ শেষ হয়েছে৷

নির্বাচন কমিশন সূত্রের খবর,তৃতীয় দফায় তিন জেলায় মোট ৬১৮ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করা হচ্ছে। এরমধ্যে দক্ষিণ ২৪ পরগনায় মোতায়েন থাকবে ৩০৭ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী। হুগলিতে ১৬৭ কোম্পানি। হাওড়ায় ১৪৪ কোম্পানি।

- Advertisement -

আরও পড়ুন:এক পায়ে বাংলা, দুই পায়ে দিল্লি দখলের দাবি মমতার

এর আগে, দ্বিতীয় দফার ভোটে মোতায়েন ছিল ৬৫১ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী। শুধু নন্দীগ্রাম বিধানসভা কেন্দ্রের ৩৫৫ টি বুথের জন্য মোতায়েন করা হয়েছিল ২২ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী৷ এ ছাড়াও ছিল রাজ্য পুলিশ। নন্দীগ্রামের ভোট নজরদারি করতে রাজ্য মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিকের দফতরে খোলা হেছিল বিশেষ সেল৷

কেন্দ্রীয় বাহিনীর পাশাপাশি ২২টি কুইক রেসপন্স টিম৷ ৭৫ শতাংশ বুথে ওয়েবকাস্টিংয়ের ব্যবস্থা। ২৬৭ টি বুথে ছিল ক্যামেরা৷ পর্যাপ্ত ফ্লাইং স্কোয়াড৷ ভোটের দিন নন্দীগ্রামে আকাশ পথে চলে নজরদারি। প্রতি বুথে একজন করে মাইক্রো অবজারভার। শুধু নন্দীগ্রামের জন্য একজন সাধারণ পর্যবেক্ষক। এছাড়া একজন পুলিশ পর্যবেক্ষক এই বিধানসভা কেন্দ্রে নিরাপত্তা বিষয়ে বিশেষ নজর রাখছিলেন৷ এবং কলকাতায় বসে কমিশনের দুই বিশেষ পর্যবেক্ষকও নজরদারি করেন।

আরও পড়ুন: ‘হিন্দুদের ভোট করতে দিতে চান না, এটাই মমতার আসল চেহারা’, বিস্ফোরক শুভেন্দু

নন্দীগ্রামে ১৪৪ ধারা প্রয়োগ করা হয়েছিল৷ সিল করে দেওয়া হয়েছিল নন্দীগ্রামের সীমানা৷ এমনকি জলপথও৷ ওই দিন নন্দীগ্রামের পাশাপাশি পূর্ব মেদিনীপুরে আরও ৮টি এবং রাজ্যে আরও ৩০ টি বিধানসভা আসনে ভোট হয়েছে ৷ দ্বিতীয় দফা ভোটে ৩০ টি আসনে ১৭১ জন প্রার্থী ছিল৷ তাদের ভাগ্য এখন বাক্সবন্দি৷

প্রথম দফায় ৫ জেলার ৩০ আসনে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন ছিল ৭৩২ কোম্পানি। রাজ্য পুলিশকর্মী মোতায়েন ছিল ২ হাজার ২২৩ জন। ঝাড়গ্রাম, বিনপুর, গোপীবল্লভপুর ও নয়াগ্রাম, এই চারটি বিধানসভা আসনের জন্য মোতায়েন ছিল ১২৭ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী।