সংসার চালাতে হাতজোড় করে কাজ চাইছেন ‘বেকার’ বিনোদ কাম্বলি 

0
30
Vinod Kambli Reveals His Financial Struggles, Says Completely Dependent On BCCI’s Pension

শান্তি রায়চৌধুরী: আমাদের প্রায় সকলেরই জানা আছে এক সময় শচীন তেন্ডুলকরের সঙ্গে ক্রিকেট কেরিয়ার শুরু করেছিলেন বিনোদ কাম্বলি। দুজনের মধ্যে খুবই বন্ধুত্ব ছিল। অথচ বর্তমানে দু’জনের অবস্থান একেবারে বিপরীত মেরুতে। অথচ বছর তিরিশ আগে কেরিয়ারের শুরুতে সাতটি ম্যাচে ৭৯৩ রান তুলে হইচই ফেলে দিয়েছিলেন মুম্বইয়ের তরুণ বিনোদ কাম্বলি। ১৯৯৩ সালে কোনও ব্যাটার যখন ১১৩.২৯ স্ট্রাইক রেটে টেস্ট ম্যাচে ব্যাটিং করে তখন বোঝাই যায় সেই ব্যাট কতটা ধ্বংসলীলা চালাতে পারে।

সেবছর ২২৪ এবং ২২৭ রান ছিল কাম্বলির সেরা স্কোর। ভারতীয় ক্রিকেটের সেই উজ্জ্বলতম তারা কোথায় যেন হারিয়ে গেলেন। আর তার বন্ধ শচীন টেন্ডুলকার পৌঁছে গেলেন এভারেস্টের চূড়ায়। ক্রিকেট খেল ভারতীয় দলের এই প্রাক্তন ক্রিকেটার এসেছিলেন সিনেমা, কোচিং, টিভি ধারাভাষ্যেও। সেখানেও সফল হয়নি। বর্তমানে আর্থিক সমস্যায় জর্জরিত কাম্বলি। কি করুন পরিস্থিতি একজন ভারতীয় ক্রিকেটারের!পরিবার চালাতে ‘হাতজোড়’ করে কাজ চাইছেন। বেকারত্বের জ্বালায় জ্বলতে থাকা কাম্বলি বলছেন, ‘সংসার চালাতে যে কোনও কাজ করতে রাজি আছি। শুধু একটা কাজ দিন!’

- Advertisement -

আরও পড়ুন: ইস্টবেঙ্গল তাঁবুতে দাঁড়িয়ে স্পোর্টস ইউনিভার্সিটি তৈরির ঘোষণা মমতার

ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের থেকে ৩০ হাজার টাকা পেনশন পান। রোজগারের একমাত্র পথ এটাই। নাম, যশ, খ্যাতি কোনও কিছুর অভাব ছিল না তাঁর। এখন তিনি একটা চাকরির প্রার্থী! বন্ধুর দুর্দিনের কথা মাস্টার ব্লাস্টার কি জানেন? প্রশ্নের উত্তরে সবাইকে অবাক করে দিয়ে প্রাক্তন বাঁহাতি ব্যাটার শুধু বলেন, ‘শচীন সব কিছু জানে।’ তিনি আরও বলেন, “ওর কাছ থেকে কিছু আশা করি না। ও আমাকে তেন্ডুলকর মিডল সেক্স গ্লোবাল অ্যকাডেমির দায়িত্ব দিয়েছিল। ভীষণ খুশি হয়েছিলাম। আমার খুব ভালো বন্ধু। আমার পাশে সবসময় দাঁড়িয়েছে।” শেষবার ২০০০ সালে ২৩ বছর বয়সে জাতীয় দলের জার্সি গায়ে দিয়ে খেলেছিলেন কাম্বলি। তারপর থেকে আর জাতীয় দলে জায়গা পাননি।