শুভেন্দুর বাড়িতে গিয়ে ‘অরাজনৈতিক’ আলোচনা সেরে এলেন দিলীপ

0
88

মিলন পণ্ডা, কাঁথি: তিনি এলেন৷ আদালতের চৌকাঠে দাঁড়ালেন৷ সেখান থেকে পার্টি অফিস এবং সব শেষে ‘তৃণমূল সাংসদে’র বাড়িতে গিয়ে মাছ-ভাত খেয়ে তৃপ্তির ঢেকুর তুললেন৷ ফেরার আগে তাঁর মুখে শোনা গেল ‘জিন্দাবাদ’ স্লোগানও৷ তিনি দিলীপ ঘোষ৷ বিজেপির সর্বভারতীয় সহ সভাপতি৷

আরও পড়ুন- জামিন অযোগ্য ধারায় মামলা, যা করলেন দিলীপ ঘোষ

পুরনো মামলায় জামিন নিতে জুম্মাবারের দুপুরে কাঁথি আদালতে হাজির হয়েছিলেন দিলীপ৷ আদালতের কাজ মিটিয়ে কাঁথি শহরে বিজেপির অস্থায়ী পার্টি অফিস গিয়ে নেতা-কর্মীদের সঙ্গে সেরে নিলেন একপ্রস্থ আলোচনা৷ সেখান থেকেই শান্তিকুঞ্জ৷ এই বাড়িতেই থাকেন শুভেন্দু অধিকারী৷ শুভেন্দুর বাবা শিশিরবাবুর সঙ্গে দেখা করলেন দিলীপ৷ ছিলেন প্রায় এক ঘণ্টা৷ পরে তিনি বলেন, ‘‘ দীর্ঘদিন ধরে শিশিরবাবুর সঙ্গে দেখা হয়নি। কাঁথি এসেছিলাম, তাই একবার দেখা করে গেলাম। শিশিরবাবু বাড়িতে আছেন, ভালই আছেন।’’

দিলীপের দাবি, ‘‘শিশিরবাবুর স্ত্রী দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ ছিলেন৷ এলাম, দেখা করলাম৷ ওরা ভাল আছেন৷ মাছ-ভাত খেলাম৷ কিন্তু কোনও রাজনৈতিক কথাবার্তা হয়নি।’’ যদিও রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, দু’জনই যেহেতু আদ্যন্ত রাজনীতিক৷ তাই ঢেঁকি স্বর্গে গিয়ে যেমন ধান ভাঙার কাজ করে থাকে তেমনই এক্ষেত্রেও সেটাও হয়ে থাকতে পারে৷ বস্তুত, শুভেন্দু-পিতা এখনও অফিসিয়ালি তৃণমূল সাংসদ৷ যদিও এখনও দল থেকে তিনি ইস্তফা দেননি৷ বরং একুশের ভোটের প্রাক্কালের কাঁথিতে শাহের জনসভায় দেখা গিয়েছিল তাঁকে৷ ফলে অফিসিয়ালি তৃণমূল সাংসদ হলেও দু’জনেই যেহেতু এখন বিজেপিতে তাই রাজনৈতিক আলোচনা হলে সেটাও স্বাভাবিক ঘটনা বলে মনে করছে ওই মহল৷

আরও পড়ুন- শান্তিকুঞ্জে দিলীপ, ‘বিরক্ত’ দিব্যেন্দু

এদিন শান্তিকুঞ্জ থেকে বেরানোর সময় দিলীপের মুখে ‘জিন্দাবাদ’ শ্লোগানও শোনা যায়৷ তবে বাড়িতে ছিলেন না শুভেন্দু৷ ঘোষবাবুর সফর নিয়ে মন্তব্য করতে চাননি শিশিরবাবুও৷ তাৎপর্যপূর্ণভাবে, এদিন শান্তিকুঞ্জে দিলীপের আসা-যাওয়ার পথে ছবি তুলতে বাধা দেওয়া হয় সংবাদমাধ্যমকে৷ যা নিয়েও শুরু হয়েছে চর্চ্চা৷