সৌগতর গলায় বিরোধী সুর, আদতে কি ড্যামেজ কন্ট্রোলের চেষ্টা

0
39
sougata roy

কলকাতা: ‘‘সারা ভারতেই এমন দুর্নীতি কম হয়েছে। বিহারের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী লালুপ্রসাদ অনেক দিন জেলে ছিলেন। কিন্তু লালুর কাছ থেকে এত নোট বার হয়নি।’’- সম্প্রতি পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের ঘনিষ্ঠ বান্ধবী অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার হওয়া শ’কোটি টাকা নিয়ে সংবাদমাধ্যমে এমনই মন্তব্য করেছেন তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায় (Sougata Roy)৷

যা নিয়ে ইতিমধ্যে দলের ভিতরে ও বাইরে শুরু হয়েছে জোর জল্পনা৷ সৌগত রায়ের মতো একজন অধ্যাপক, প্রবীণ নেতা কেন আচমকা বেসুরো হলেন তা নিয়েও চর্চ্চা শুরু হয়েছে৷ যদিও রাজনৈতিক মহল বিষয়টিকে এত সহজভাবে দেখতে নারাজ৷ তাঁদের মতে, সৌগতবাবু পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের প্রসঙ্গ টেনে ‘চিটিংবাজ’দের সমালোচনা করেছেন, দলের নয়৷ একই সঙ্গে ‘তৃণমূলের সকলে যে খারাপ নয়’ সেটাও স্পষ্ট করেছেন নিজের প্রতিক্রিয়ায়৷

- Advertisement -

বস্তুত, সংবাদমাধ্যমে সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে সৌগতবাবুর গলায় শোনা গিয়েছে, ‘‘৫০ কোটি টাকা! টাকার ছবি না দেখলে তো বিশ্বাস করতে পারতাম না। দেখলাম তো ছবি। এই যে টাকার পাহাড়টা দেখা গিয়েছে, এটা দেখার পরে লোকের কাছে কী জবাব দেব আমরা? এই বিড়ম্বনা, এই লজ্জা তো আমাদের আছে।’’ একই সঙ্গে সৌগতর কন্ঠে শোনা গিয়েছে ‘‘আমরা তৃণমূলের লোক, তৃণমূলের সঙ্গেই থাকব, আর তৃণমূলের সবাই চোর বলে দাগিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করলে আমরা প্রতিরোধ করব।’’

যা শুনে এক রাজনৈতিক বিশ্লেষকের সরস ব্যাখ্যা, ‘‘ট্রেনে বাসে কখনও পকেটমার দেখেছেন? আরও স্পষ্ট করে বললে, পকেটমারি করতে গিয়ে পকেটমারের ধরা পড়ার ঘটনা কি কখনও দেখার সৌভাগ্য হয়েছে! হয়ে থাকলে দেখবেন, পকেটমার ধরা পড়া মাত্রই দু’তিন ‘যাত্রী’ উপযাচক হয়ে তাকে খানিক বেশি চড় থাপ্পড় মেরে চলন্ত বাস থেকে নামিয়ে নেন৷ একঝলক দেখলে মনে হবে, বেশ করছে৷ এদেরকে এভাবেই মারা উচিত! ভাল করে খোঁজ নিলে দেখবেন, ওরা পকেটমারেরই জুড়ি! পাবলিক মারের হাত থেকে বাঁচাতেই এমন ‘নাটক!’’ এক্ষেত্রেও তেমনটা নয় তো? সৌগতর (Sougata Roy) বয়ানকে সামনে রেখে এমন চর্চ্চাও শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে৷

আরও পড়ুন: নিয়োগ দুর্নীতিতে এবার ‘শুভেন্দু-ঘনিষ্ঠ’, রক্ষাকবচ দিল না হাই কোর্ট

downloads: https://play.google.com/store/apps/details?id=app.aartsspl.khaskhobor