তামাশা দেখছে রাজ্য-কেন্দ্র, এমন চললে আস্ত জেলাটাই চলে যাবে নদী গর্ভে

0
16

মালদহ: মাস যায়, বছর যায়৷ কিন্তু মালদহের নদী ভাঙনের বারমাস্যার কোনও বদল হয় না৷ ফলে ফি-বারই একটু একটু করে জমি, বসতি গিলে খায় গঙ্গা৷ এরই প্রতিকারে ‘গঙ্গা ভাঙন প্রতিরোধ অ্যাকশন প্ল্যান’ দ্রুত কার্যকর করার জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর দ্বারস্থ হবেন মালদহ দক্ষিণ লোকসভা কেন্দ্রের বর্ষীয়ান সাংসদ তথা কংগ্রেস নেতা আবু হাসেম খান চৌধুরী ওরফে ডালুবাবু।

শনিবার মালদহের মানিকচক ব্লকের ভাঙণ কবলিত এলাকা পরিদর্শনে গিয়ে ছিলেন আবুহাসেম৷ সেখানেই এই মন্তব্য করেন তিনি। তিনি বলেন, ‘‘বছর বছর গঙ্গা এগিয়ে আসছে। প্রত্যেক বছর ভাঙনের জন্য গৃহহীন হচ্ছে নদী তীরবর্তী এলাকার বাসিন্দারা। বন্যার জলে প্লাবিত হচ্ছে বিঘার পর বিঘা ফসলের জমি, বসতবাড়ি। কিন্তু এই সমস্যা সমাধানে না রাজ্য, না কেন্দ্র- কেউই কোনও কার্যকরী ভূমিকা গ্রহণ করছে না৷ ওরা শুধু তামাশা দেখছে! এমন চলতে থাকলে মালদহ তো বটেই আগামীদিনে উত্তরবঙ্গের বিস্তৃর্ণ এলাকা গঙ্গার কবলে চলে যাবে৷’’

বস্তুত, ফি-বছর গঙ্গার গ্রাসে বসতবাড়ি থেকে জমি হারায় মালদহ জেলার বিস্তৃর্ণ এলাকার বাসিন্দা। মানিকচক, রতুয়া, কালিয়াচক ২ ও ৩নং ব্লকে ভাঙন প্রবনতা তীব্র আকার নেয়। হাজার হাজার পরিবার গৃহহীন হয়। কিন্তু ভাঙন প্রতিরোধের কোনও মাস্টার প্ল্যান করা হয় না। ফলে বালির বস্তা দিয়ে ভাঙন প্রতিরোধ ও বন্যা নিয়ন্ত্রণের চেষ্ঠা হয়। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয় না৷

তাই এবার এই অবস্থার পরিবর্তনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে দরবার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মালদহ জেলার বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা তথা সাংসদ৷ আজ তিনি মানিকচক ঘাট সংলগ্ন পশ্চিম নারায়নপুর কলোনি এলাকায় যে ভাঙন হচ্ছে সেই ভাঙ্গন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেন৷ ভাঙন এলাকা পরিদর্শনের পাশাপাশি এলাকাবাসীদের সঙ্গে কথা বলেন এবং কাজ না হওয়ায় রাজ্য ও কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। বালির বস্তার মাধ্যমে যে ভাঙন রোধের কাজ হচ্ছে সেই ভাবে কাজ হলে মালদহ একদিন নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে বলে দাবি সাংসদের৷

আরও পড়ুন: দু’বছর পর শহিদ সমাবেশ, সময় থাকতেই এলাহী আয়োজনের বন্দোবস্ত