বিডিওদের ওপর নজরদারি চালাবে পুলিশ, মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ ঘিরে ক্ষুব্ধ আমলারা

0
76
mamata banerjee

কলকাতা: ব্লকের বিডিও বা থানার ওসি সমান পদ মর্যাদার নন৷ বরং, পদ মর্যাদার দিক থেকে থানার ওসির চেয়ে বড় ব্লকের বিডিও৷ কিন্তু এবার থেকে সেই থানার ওসিরাই নাকি বিডিও-দের হাজিরার দিতে নজর রাখবেন! বুধবার বর্ধমান পূর্ব ও পশ্চিমের প্রশাসনিক বৈঠক থেকে প্রকারন্তরে এমনই নির্দেশ মুখ্যমন্ত্রী সামনে এনেছেন বলে মত ওয়াকিবহাল মহলের৷ যার জেরে, যথেষ্ঠ ক্ষুব্ধ একাংশ আমলা৷ তাঁরা বলছেন, এভাবে উঁচু পদ মর্যাদার কোনও অফিসারের নজরদারি তার থেকে নিচুস্তরের অফিসারের হাতে দেওয়ার অর্থ সংশ্লিষ্ট পদটিকেই অবমাননা করা৷ বিষয়টিকে ঘিরে জেলায় জেলায় বিডিওদের মধ্যে তীব্র অসন্তোষ তৈরি হয়েছে বলে খবর৷ যদিও প্রকাশ্যে কেউই কোনও মন্তব্য করতে চাননি৷

ঘটনার সূত্রপাত, গতকাল (বুধবার) বর্ধমানের প্রশাসনিক বৈঠক থেকে মুখ্যমন্ত্রী জানান, একাংশ বিডিও নিয়মিত অফিসে আসছেন না বলে তাঁর কাছে অভিযোগ এসেছে৷ আবার অনেকে অফিসে এলেও দুপুরের পরই অফিস থেকে চলে যান৷ ফলে দুর দুরান্ত থেকে বহু মানুষ ব্লক অফিসে এসেও বিডিওকে না পেয়ে তাঁদের অনেক দরকারি কাজ সারতে পারেন না বলে তাঁর কাছে অভিযোগ এসেছে৷ তাই বিডিওদের উপস্থিতির বিষয়ে নজরদারি চালানোর জন্য থানার ওসিদের মাঝে মধ্যে ‘সারপ্রাইজ ভিজিটে’র নির্দেশ দেন তিনি৷ এরপরই বিষয়টি নিয়ে চর্চ্চা শুরু হয়েছে৷

বস্তুত, রাজ্যের আধিকারিকদের দলদাসে পরিণত করার চেষ্টা হচ্ছে বলে বারে বারে বিভিন্ন সভা সমাবেশ থেকে অভিযোগ করে থাকেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী৷ বিজেপি শিবিরের অভিযোগ, রাজনৈতিক কারণে থানার বড়বাবুরা শাসকদলের কাছে আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য হন৷ কিন্তু সেই অর্থে অনেক বিডিও নিরপেক্ষ থাকার চেষ্টা করেন৷ কিন্তু এবার ঘুরিয়ে পুলিশকে দিয়েই বিডিও-দের ওপর চাপ সৃষ্টির চেষ্টা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন তাঁরা৷ যদিও শাসক শিবিরের দাবি, সরকারি কাজের উন্নয়নে গতি আনতে ‘ফাঁকিবাজ’ বিডিও-দের ধরতেই এই নয়া উদ্যোগ নিচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ বিষয়টির মধ্যে অযথা রাজনীতি খোঁজা ঠিক নয়৷

আরও পড়ুন: মমতাকে মা সারদার সঙ্গে তুলনা, নাম না করে প্রতিবাদ বেলুড় মঠের