সৌরভপত্নী ডোনা কি রাজ্যসভায়, জানিয়ে দিলেন দিলীপ ঘোষ

0
86

কলকাতা: তবে কি দাদা একা নয়, সস্ত্রীকই নামছেন ‘রাজনৈতিক ইনিংস’ খেলতে? জুম্মাবারের সন্ধ্যে থেকে দাদার ‘নয়া ইনিংস’ নিয়ে বাংলার রাজনৈতিক উঠোনে জল্পনা ছিলই৷ সেই জল্পনাকে উস্কে এবার উঠে এল সৌরভপত্নী, নৃত্য শিল্পী ডোনা গঙ্গোপাধ্যায়ের নাম৷ রাষ্ট্রপতি মনোনীত রাজ্যসভার সদস্য হিসেবে উঠে আসছে ডোনার নাম৷ সস্ত্রীক সৌরভ এই বিষয়ে এখনও ‘ঝেড়ে না কাশলেও’ সোমের সকালে জল্পনাকে ঘূর্ণিঝড়ের পর্যায়ে নিয়ে গিয়েছেন বিজেপির সর্ব ভারতীয় সহ সভাপতি দিলীপ ঘোষ৷

আর পাঁচটা দিনের মতো এদিনও সকালে নিউটাউনের ইকোপার্কে প্রাতঃভ্রমণে এসেছিলেন দিলীপ৷ সেখানেই জল্পনা উস্কে তিনি বলেন, ‘‘ভাল কথা। বাংলা থেকে যদি কাউকে চয়ন করা হয় তাহলে ভালই হবে!’’ রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন: দিলীপ সরাসরি ‘হ্যাঁ’ বলেননি৷ আবার ‘না’ও বলেননি৷ যার জেরে জল্পনা বাড়াটাই স্বাভাবিক৷ দিলীপের ঘনিষ্ঠ মহল অবশ্য জানাচ্ছে, ডোনার রাজ্যসভায় সদস্য হওয়া প্রায় পাকা। তবে শেষ মুহূর্তে যাতে কোনও বিপত্তি না ঘটে তাই পুরো বিষয়য়টি আপাতত গোপন রাখা হচ্ছে।

ওই মহল মনে করিয়ে দিচ্ছে, একুশের বিধানসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে ‘মহারাজে’র বিজেপি যোগের সম্ভবনা চূড়ান্ত হয়ে গিয়েছিল৷ কিন্তু আগেভাগেই যেভাবে বিষয়টি প্রকাশ্যে চলে এসেছিল এবং দাদা রাজনীতিতে এলে তার সুফল ও কুফল নিয়ে যেভাবে বিশ্লেষণ শুরু হয়েছিল তাতে কার্যত কিংকর্তব্য বিমুঢ় অবস্থা তৈরি হয়েছিল ভারতীয় ক্রিকেট দলের প্রাক্তন অধিনায়কের৷ রাজনীতির কানাগলিতে শুনতে পাওয়া যায়, সেই সময় রাজ্যের প্রাক্তন ক্রীড়া মন্ত্রী, বর্ষীয়ান সিপিএম নেতা অশোক ভট্টাচার্য সৌরভকে বলেছিলেন, ‘‘সবাই তোমাকে ক্রিকেটার হিসেবেই মনে রাখতে চায়৷ এসবের মধ্যে না গেলেই ভাল!’’ যার নিট ফল, শেষ মুহুর্তে রাজনৈতিক ব্যাট হাতে ইনিংস খেলতে নামা হয়নি সৌরভের৷

এবারে কি হবে? জুম্মাবারের সন্ধ্যায় কেন্দ্রের তরফে ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালে আয়োজিন অনুষ্ঠানে ডোনার নৃত্য পরিবেশন, রাতে গঙ্গোপাধ্যায় বাড়িতে অমিত সহ বিজেপি নেতাদের শাহী নৈশভোজে যোগদান তাতে বাড়তি ঘি ঢেলেছে৷ এদিকে রাষ্ট্রপতি মনোনীত প্রার্থী হিসেবে বাংলা থেকে যাওয়া রূপা গঙ্গোপাধ্যায় ও স্বপন দাশগুপ্তর মেয়াদও শেষের পথে৷ ফলে নয়া নাম হিসেবে ডোনার নাম সামনে আসছে৷ যদিও এই বিষয়ে সস্ত্রীক সৌরভ এখনও স্পিকটি নট৷ অগত্যা, বাড়ছে জল্পনার ঝড়ের দাপট!

আরও পড়ুন:‘হয় প্রেম দাও, না হলে তুলে নাও’ আল্লাহকে অস্ফুটে বলছিলেন তণ্বী