পুজোর মুখে স্বস্তি, জোড়াফুলের ১৯ জন নেতার সম্পত্তি মামলার হাইকোর্টের রায়কে খারিজ করল শীর্ষ আদালত

0
12
EWS

কলকাতা: সামনেই পঞ্চায়েত ভোট, তারপরেই ২০২৪-এর নির্বাচন। এদিকে ভোটের মুখে তৃণমূলের (TMC) হেভি ওয়েট নেতাদের ঝুলির বেড়াল বেরিয়ে পড়ায় অস্বস্তি বাড়ছিল ঘাসফুল শিবিরে। পাশাপাশি, গত কয়েক বছরে ব্রাত্য বসু, ফিরহাদ হাকিম, শোভন চট্টোপাধ্যায় সহ প্রায় ১৯ জন নেতার অস্বাভাবিকভাবে সম্পত্তি বৃদ্ধি মামলায় এই নেতাদের বিরুদ্ধে ইডি-তদন্তের নির্দেশ দিয়েছিল কলকাতা হাইকোর্ট।

তবে হাইকোর্টের এই নির্দেশ খারিজ করে দিল সুপ্রিম কোর্ট। ফলে কার্যত পুজোর মুখে স্বস্তির নিশ্বাস ফেললেন এই ১৯ জন নেতা, বলে মনে করা হচ্ছে। নেতাদের সম্পত্তি বৃদ্ধিতে অস্বাভাবিক কিছু পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছে শীর্ষ আদালত। সুপ্রিম কোর্টের এই রায়ের পর তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ বলেন, “বিজেপির কুৎসার চক্রান্ত ব্যর্থ হল।” কুণাল ঘোষের বক্তব্যে বিজেপি মুখপাত্র শমীক ভট্টাচার্যের পাল্টা আক্রমণ, “এই মামলার সঙ্গে বিজেপির কোনও সম্পর্ক নেই। সময়মত সব কিছুর উপর থেকে পর্দা উঠবে। সত্য প্রতারিত হতে পারে, পরাজিত নয়”।

- Advertisement -

আরও পড়ুন- একই এলাকায় বার বার ডাকাতি, অবশেষে ডাকাত ধরতে সমর্থ পুলিশ

উল্লেখ্য, ২০১১ সাল থেকে ২০১৬ সালের মধ্যে তৃণমূলের এই নেতাদের সম্পত্তি উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে বলে দাবি করেছিলেন আইনজীবী শামিম আহমেদ। পাঁচ বছরে এই পরিমাণে সম্পত্তি কিভাবে বৃদ্ধি পেল তা ইডিকে খতিয়ে দেখার জন্য আর্জি জানান তিনি। এরপর হাইকোর্টে ওঠে এই মামলা। ১৯ জন তৃণমূল (TMC) নেতার সম্পত্তি বাড়ার পেছনে মেছো গন্ধ পেয়ে ইডিকে তা খতিয়ে দেখার নির্দেশ দিয়েছিল হাইকোর্ট। এরপর হাইকোর্টের রায়কে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন তৃণমূল নেতারা। সেই মামলার হাইকোর্টের রায়কে খারিজ করে দিল শীর্ষ আদালত।