ফল-মিষ্টি দিয়ে বাংলার সমাজ ভাগ করতে স্বাগত জানাচ্ছেন: কটাক্ষ Md Salim -র

0
43

কলকাতা: মঙ্গলবার একই দিনে মেদিনীপুরে দুই দলের দুই শীর্ষ প্রধান৷ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, অন্যজন আরএসএস মোহন ভাগবৎ৷ কেশিয়াড়ির আইসিকে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, মোহন ভাগবৎকে ফল-মিষ্টি দিয়ে স্বাগত জানাতে। ‘‘শুনলাম, আপনার এলাকায় আরএসএস–এর চিফ আসছেন। দেখে নেবেন, প্রশাসনের তরফে ওঁকে ফল, মিষ্টি পাঠাবেন। যাতে বুঝতে পারেন যে আমরা সবাইকে স্বাগত জানাই। ভাল করে নিরাপত্তার ব্যবস্থা করবেন’’, এমনটাই বলেন মুখ্যমন্ত্রী। এই ঘটনার পর থেকেই বিরোধী শিবিরক থেকে আসছে একের পর এক কটাক্ষ।

সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক মহম্মদ সেলিম মুখ্যমন্ত্রীর এ হেন বক্তব্যকে উপহাস করেছেন। ফেসবুক পোস্টে সেলিম লিখেছেন, “এক সময় বাংলার মুখ্যমন্ত্রীরা দাঙ্গাবাজদের বিষদাঁত ভেঙে দেওয়ার কথা বলতেন। তাই বাংলায় সুদীর্ঘ সময় ধরে সাম্প্রদায়িক শক্তি দাঁত ফোটাতে পারেনি। আজ আরএসএস -এর দুর্গা তাঁর গুরুকে ফল-মিষ্টি দিয়ে বাংলার সমাজ ভাগ করতে স্বাগত জানাচ্ছেন। আর তাঁর এই মাখামাখির জন্য বলি হচ্ছে বাংলার ঐতিহ্য, সম্প্রীতি, ভ্রাতৃত্ব।”

আরও পড়ুন: KPL : কাশ্মীর প্রিমিয়ার লিগে বিরাটকে আমন্ত্রণ

এছাড়াও সিপিএমের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সুজন চক্রবর্তীও টুইট করে কটাক্ষ করেছেন। তিনি লিখেছেন, “তৃণমূল কংগ্রেসের মধ্যেও যে আরএসএস কাজ করে তা বারে বারেই স্বীকৃত হয়েছে। আরএসএস এর মধ্যেই প্রকৃত দেশপ্রেম খুঁজে পেয়েছেন উনি। মুখ্যমন্ত্রীকে আরএসএস এর বিরুদ্ধে বলতে শুনেছেন কখনো কেউ!” উল্লেখ্য, এদিন দুপুরে মেদিনীপুরে পৌঁছেই জেলা পরিষদের প্রদ্যোৎ স্মৃতি সদনে প্রশাসনিক বৈঠকে যোগ দেন মুখ্যমন্ত্রী৷ বৈঠক চলাকালীনই মুখ্যমন্ত্রীর কাছে খবর আসে, আজই পশ্চিম মেদিনীপুরের কেশিয়াড়িতে আসছেন আরএসএস প্রধান মোহন ভাগবৎ৷ এরপরই মুখ্যমন্ত্রীকে বলতে শোনা যায়, ‘‘‌খেয়াল রাখবেন, যাতে দাঙ্গা না বাধায়!’’