মমতা জাত বেদিনী, তৃণমূলের নিশানায় মিঠুন

0
1047

কলকাতা: ভোট বড় বালাই! জার্সি বদলালে তো কথায় নেই৷ সেটাই প্রমাণ করে দিলেন ভাতারের তৃণমূল প্রার্থী মানগোবিন্দ অধিকারী৷ সরাসরি আক্রমণ করলেন দলেরই প্রাক্তন সাংসদ তথা অধুনা বিজেপি নেতা, অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তীকে৷ বললেন, ‘‘গোখরকে জব্দ করার জন্য আছে বেদিনী৷ মিঠুন (চক্রবর্তী) যদি জাত গোখরো হন, তাহলে আমাদের বাংলার দিদিও জাত বেদিনী৷’’

আরও পড়ুন: ক্ষোভ বরদাস্ত নয়, শাস্তিমূলক ব্যবস্থার হুঁশিয়ারি শাহের

একই সঙ্গে তাঁর অভিযোগ, ‘‘টাকার জন্যই মিঠুন বিজেপিতে নাম লিখিয়েছেন৷’’ তুলে এনেছেন অভিনেতার পারিবারিক জীবনের কথাও৷ যা নিয়ে রাজনৈতিক মহলে শুরু হয়েছে তীব্র প্রতিক্রিয়া৷ খাসখবরের তরফে অভিনেতা মিঠুনের প্রতিক্রিয়া জানার চেষ্টা করা হয়েছিল৷ তবে কোনও প্রতিক্রিয়া মেলেনি৷

আরও পড়ুন: ওই পরিবারটাই বেইমান, শিশির-শুভেন্দুকে তীব্র আক্রমণ তৃণমূল নেতার

প্রসঙ্গত, গত ৭ মার্চ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ব্রিগেড মঞ্চে হাজির হয়েছিলেন মিঠুন৷ মাত্র তিন মিনিটের ভাষণেই ব্রিগেড কাঁপিয়ে দিয়ে নতুন স্লোগান আউড়েছিলেন বাঙালীবাবু৷ ‘মারব এখানে লাশ পড়বে শশ্মানে’৷ নিজের জনপ্রিয় এই ডায়লগ আউড়ে মিঠুন বলেন, ‘এই ডায়লগ চলবে৷ আজ একটা নতুন ডায়লগ দিচ্ছি৷ মনে রাখবেন৷ আমি জলঢোরাও নই৷ বেলেডোরাও নই৷ আমি একটা জাত গোখরো৷ এক ছোবলেই ছবি৷ কেউ পালাতে পারবে না৷’’

শুধু তাই নয়, কেন স্বেচ্ছায় দীর্ঘদিন রাজনৈতিক মঞ্চ থেকে দূরে ছিলেন, তাঁর ব্যাখ্যাও দিয়েছিলেন ওই মঞ্চ থেকে৷ বলেছিলেন, ‘‘একটা স্বপ্ন ছিল৷ গরিবদের জন্য কিছু করার৷ ওই স্বপ্নকে বাস্তবায়িত করার লক্ষ্যেই প্রধানমন্ত্রীর জনসভায় এসেছি৷’’ যোগ করেছিলেন, ‘‘কানাগলিতে জন্মে বিশ্বের বৃহত্তম গণতান্ত্রিক দেশের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে মঞ্চে থাকব এটা ভাবাটাই স্বপ্নের মতো৷’’

ওই ঘটনার পর থেকেই মিঠুনের মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী নিয়ে জল্পনার ঢেউ বাড়তে থাকে৷ সম্প্রতি মিঠুন মুম্বইয়ের পরিবর্তে কলকাতার ভোটার তালিকায় নাম তোলার প্রক্রিয়া শুরু করেছেন৷ প্রসঙ্গত, ১০ টি আসনে বিজেপি এখনও প্রার্থী ঘোষণা করেনি৷ তাহলে কি মিঠুনও গেরুয়া জার্সি গায়ে চড়িয়ে একেবারে বঙ্গ ভোটের ময়দানে হাজির হতে চলেছেন? এনিয়ে জল্পনা ছিলই৷ তবে সোমবার ভাতারের দলীয় সভা থেকে তৃণমূল প্রার্থী মানগোবিন্দ অধিকারী যেভাবে মিঠুনকে আক্রমণের কেন্দ্রবিন্দুতে টেনে এনেছেন, তাতে জল্পনার পারদ আরও চড়েছে৷

মানগোবিন্দবাবুর কথায়, ‘‘উনি দিদির (মমতা) সঙ্গে বেইমানি করেছেন৷ অভিনেতা হিসেবে ওঁনার সুনাম থাকতে পারে৷ কিন্তু টাকার লোভে বিজেপিতে গিয়ে উনি যেভাবে নিজের সুনামকে বিক্রি করতে চাইছেন, সেটা তো বাংলার মানুষকে জানানো প্রয়োজন৷’’ মিঠুনের অবশ্য কোনও প্রতিক্রিয়া মেলেনি৷ সূত্রের খবর: দলের নির্দেশেই এবার মিঠুনকে আক্রমণের পথে হাঁটবেন তৃণমূলের অন্য প্রার্থীরা৷