Goa Election Exclusive : কংগ্রেস কি পারবে নিজেদের প্রমাণ করতে, কৌতূহল রাজনৈতিক মহলের

0
30
Congress

খাস খবর ডেস্ক : রাজনীতিতে একটি কথা বহু প্রচলিত, “পুরনো চাল ভাতে বাড়ে”। শতাব্দী প্রাচীন দল কংগ্রেসের ক্ষেত্রেও এই কথাটা সত্যি বলে দাবি করেন কংগ্রেসের একাধিক সদস্য থেকে সমর্থক। তবে ২০২২ সালের গোয়া বিধানসভা নির্বাচনের আগে কংগ্রেসকে আক্রমণ করছে একাধিক বিজেপি বিরোধী দল। তাদের মতে, কংগ্রেসের দ্বারা বিজেপিকে পরাজিত করা সম্ভব নয়। 

আরও পড়ুন : Goa Election Exclusive : আপ, তৃণমূলের পদচারণায় ক্রমশ হাসি চওড়া হচ্ছে বিজেপির

একাধিক যুক্তি তুলে ধরছে বিজেপি বিরোধী দলগুলি তাদের কথার সাপেক্ষে। অনেকেই বলছেন, এর জন্য খুব একটা পিছনে যেতে হবেনা, ২০১৭ সালের গোয়া বিধানসভা নির্বাচনের দিকে তাকালেই বোঝা যাবে শতাব্দী প্রাচীন দলের দায়িত্ববজ্ঞানহীনতা। ২০১৭ সালের গোয়া বিধানসভা নির্বাচনে কংগ্রেস একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পেলেও তারা ম্যাজিক ফিগার থেকে মাত্র ৪টি আসন দূরে লড়াই শেষ করেছিল। কংগ্রেস ১৭ টি আসন জিতেও শেষ পর্যন্ত সরকার গঠন করতে পারেনি, শুধুমাত্র হাইকমান্ডের গড়িমসির জন্য। 

আরও পড়ুন : Up Election : প্রিয়াঙ্কাকে সামনে রেখে উত্তরপ্রদেশে মহিলা ভোটাররাই লক্ষ্য কংগ্রেসের

সেই সময় গোয়ার একাধিক কংগ্রেস নেতা আঙুল তুলেছিলেন মধ্যপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী দিগ্বিজয় সিংহের দিকে। বিজেপির পক্ষ থেকে নিতিন গড়কড়ি যখন একাধিক ছোট দলের সঙ্গে সরকার গঠনের জন্য আলোচনা করছিলেন, সেই সময় কংগ্রেস ব্যস্ত ছিল নিজেদের মুখ্যমন্ত্রীর নাম ঠিক করতে। এরফলে গোয়ার ক্ষমতা দখলের স্বপ্ন কংগ্রেসের কাছে অধরাই থেকে যায়। কালের নিয়মে গোয়ার সমুদ্রে আছড়ে পড়েছে একের পর এক ঢেউ, সঙ্গে সঙ্গে গোয়ার রাজনীতিও আন্দোলিত হয়েছে গত কয়েক বছরে। কংগ্রেসের বিধায়ক সংখ্যা ১৭ থেকে কমে ৪ হয়ে গিয়েছে। 

আরও পড়ুন : Purvanchal Expressway: পূর্বাঞ্চল এক্সপ্রেসওয়ের উদ্বোধনে কংগ্রেস ও সমাজবাদী পার্টিকে ‘পরিবারতন্ত্র’ নিয়ে একযোগে খোঁচা নমোর

কংগ্রেসের এই মানসিকতা নিয়ে সম্প্রতি কটাক্ষ করেছিলেন এনসিপি সুপ্রিমো শরদ পাওয়ার। তিনি বলেছিলেন, “কংগ্রেসের অবস্থা এখন উত্তরপ্রদেশের প্রাচীন কালের জমিদারদের মতো, যারা শুধু একসময়ে ক্ষমতায় ছিল এই ভেবে আনন্দ পায় আর মিথ্যা অহংকার করে”। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, কংগ্রেসের একসময়ের এই ঐতিহ্য কখনও কখনও তাদের বিপদ ডেকে আনে। কংগ্রেসের পক্ষ থেকে বারবার দাবি করা হচ্ছে, তারাই বিজেপির বিরুদ্ধে প্রধান বিরোধী দল দেশের রাজনীতিতে। 

আরও পড়ুন : CPIM West Bengal : বিপ্লবের মাস নভেম্বরে বাংলার রাজনৈতিক আকাশে পুনরুত্থান সিপিএমের

রাজনৈতিক মহলের মতে, ২০২২ সালের গোয়া সহ পাঁচ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনে কংগ্রেসকে প্রমাণ করতে হবে, যে তারাই বিজেপির বিরুদ্ধে প্রধান বিরোধী দল, শুধু মুখে বললে হবে না। দশ জনপথ কতটা নিজেদের অস্তিত্ব প্রমাণ করতে পারবে এখন সেদিকেই তাকিয়ে রাজনৈতিক মহল।