লেজকাটা শিয়ালের সঙ্গে কুণালের তুলনা, পরোক্ষে শুভেন্দুকে গ্রেফতারের পরামর্শ দিলীপের

0
43

কলকাতা: ‘দাঙ্গাবাজ শুভেন্দু’! এই স্লোগানকে সামনে রেখে বিরোধী দলনেতাকে গ্রেফতারের দাবিতে সোমবারই হলদিয়া থেকে কলকাতা ধর্ণা অবস্থানে বসেছিল শাসক তৃণমূল৷ মঙ্গলবার সকালে সেই প্রসঙ্গই টেনে এনে বিজেপির সর্বভারতীয় সহ সভাপতি তথা সাংসদ দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh) বললেন, ‘‘ওদের হাতে সরকার, পুলিস, সিআইডি। ধরুন। গ্রেফতার করুন। এরকম নাটক করার কোনও দরকার নেই!’’ একই সঙ্গে তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষকে লেজকাটা শিয়ালের সঙ্গে তুলনা টেনে বলেছেন, ‘‘এদের নেতৃত্বে আছেন কুনাল ঘোষ। আসলে যে শিয়ালের লেজ কাটা গেছে, সে চায় সবার লেজ কাটা হোক!’’

স্বভাবতই, দিলীপ ঘোষের এহেন বয়ান নিয়ে শুরু হয়েছে রাজনৈতিক তরজা। দিলীপ রাজ্য সভাপতি থাকাকালীনই বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন সেদিনের দাপুটে তৃণমূল নেতা শুভেন্দু৷ ফলে শুরু থেকেই দিলীপ-শুভেন্দুর সম্পর্কটা ছিল ‘অম্ল-মধুর’৷ ওই প্রসঙ্গ টেনে রাজনৈতিক মহলের একাংশ বলছেন, পরোক্ষে কি ‘দম থাকলে শুভেন্দুকে গ্রেফতার করে দেখাক’ গোছের প্রচ্ছন্ন হুমকিই, সুকৌশলে শাসকের দিকে ছুঁড়ে দিলেন দিলীপ ঘোষ( Dilip Ghosh) ? আপাতত এই নিয়ে চর্চ্চা শুরু হয়েছে বঙ্গ বিজেপির অন্দরেও৷

এই প্রসঙ্গেই দিলীপের মুখে ‘লাগাম পরানোর’ প্রসঙ্গটি টেনে শুভেন্দু অনুগামীরা বলছেন, ‘‘বুঝতে পারছেন তো, কেন ওর মুখে লাগাম পরাতে নির্দেশ জারি করেছিলেন শীর্ষ নেতৃত্ব!’’ তাঁরা বলছেন, ‘‘শুধু ফাঁকা আওয়াজে দল চলে না৷ কর্মীদের পাশে থাকতে হয়৷ সেটা আমাদের দাদা (পড়ুন, শুভেন্দু) করছেন৷ তাই ওর গাত্র্যজ্বালা ধরছে!’’ যদিও এই প্রসঙ্গে শুভেন্দুর কোনও প্রতিক্রিয়া মেলেনি৷ তাঁর মম্তব্যের জেরে শুরু হওয়া চর্চ্চা প্রসঙ্গে যেমন নতুন করে মুখ খুলতে চাননি দিলীপ ঘোষও (Dilip Ghosh) ৷ একইভাবে ‘লেজকাটা শেয়াল’ উপাধী সম্পর্কে মেলেনি কুণালের কোনও প্রতিক্রিয়াও৷

আরও পড়ুন: সারদার আমানতকারীদের জন্য সুখবর, ক্ষতিপূরণ দিতে তৎপর আদালত