অভিনেত্রী-সাংসদ নুসরতের ‘নিখোঁজ’ পোস্টার ঘিরে চাঞ্চল্য বসিরহাটে

0
139

বসিরহাট: ‘নিখোঁজ’ অভিনেত্রী-সাংসদ নুসরত জাহান! তাঁর ‘সন্ধান’ চেয়ে পোস্টারে পোস্টারে ছয়লাপ হাড়োয়া বিধানসভার চাপাতলা পঞ্চায়েত এলাকা। পোস্টারের নিচে লেখা, সাধারণ জনগণ, আবার কোনওটায় লেখা প্রতারিত জনগণ। ঘটনাকে ঘিরে শোরগোল পড়েছে এলাকায়৷ যাকে ঘিরে ইতিমধ্যেই তরজায় জড়িয়েছে শাসক-বিরোধী৷

বস্তুত, নুসরত বসিরহাটের সাংসদ৷ কিন্তু কালে ভবিষ্যতে তাঁর দেখা মেলে৷ তারই জেরে কে বা কারা এই পোস্টার সাঁটিয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে৷ তৃণমূলের একাংশ মানছেন, পোস্টার কাণ্ডের পিছনে রয়েছে এলাকাবাসীর ক্ষোভ৷ দেগঙ্গার চাপাতলা পঞ্চায়েতের প্রধান হুমায়ুন রেজা চৌধুরী বলেন, “২০০৯ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত বসিরহাটের সাংসদ ছিলেন হাজি নুরুল ইসলাম। এলাকার উন্নয়ন-সহ সব কাজে সাধারণ মানুষ থেকে তৃণমূলের কর্মীরা তাঁকে পেয়েছেন। কিন্তু বর্তমানে তৃণমূল সাংসদকে পাওয়াই যায় না। সম্ভবত সেই কারণেই এলাকার মানুষ এই ধরনের পোস্টার দিয়েছে।” বিষয়টি জানার পরেই দলের কর্মীদের দিয়ে পোস্টারগুলি ছিঁড়ে ফেলা হয় বলেও জানান তিনি।

তবে সাংসদ ঘনিষ্ঠ তৃণমূল নেতৃত্বের দাবি, এটা বিরোধীদের কাজ। কোনও ইস্যু না থাকার কারণেই বিরোধীরা এই ধরনের কুৎসা রটাচ্ছে। এলাকার উন্নয়নে সাংসদের ভূমিকা রয়েছে। স্থানীয় নেতৃত্বের সঙ্গেও সাংসদ নিয়মিত যোগাযোগ রাখেন। তৃণমূলের চাপাতলা অঞ্চল সভাপতি আব্দুল রাজ্জাক বলেন, “বিষয়টি শুনেছি। যারাই কাজটি করুক না কেন, অন্যায় কাজ হয়েছে।”

এদিকে, তারকা সাংসদের অনুপস্থিতির অভিযোগে ক্ষুব্ধ বসিরহাটের সন্দেশখালি, হিঙ্গলগঞ্জ, হাসনাবাদ, বসিরহাট উত্তর ও দক্ষিণ বিধানসভার তৃণমূলের একাংশও। তৃণমূলের স্থানীয় নেতৃত্বের একাংশের অভিযোগ, তিনি ধূমকেতু। বসিরহাটে শুধু প্রচার করতে আসেন। করোনা কালে বসিরহাটের সাংসদকে দেখা যায়নি। গত বছর আমফানের সময়ও মানুষ তাঁকে পাশে পায়নি বলে অভিযোগ। যদিও এ নিয়ে এখনও অভিনেত্রীর কোনও প্রতিক্রিয়া মেলেনি।

আরও পড়ুন: ঠেকানো যাচ্ছে না ইঁদুরের উৎপাত, স্বীকারোক্তি ফিরহাদের