এক পিস আমের দাম ৫০০ টাকা, ধাতব ছুরি দিয়ে কাটা যায় না এই কোহিতুর আম

0
62

কলকাতা: এক পিস আমের দাম কত হতে পারে? ৫০০ টাকা! হ্যাঁ, পাঁচশো টাকায়৷ কেজি নয়৷ পিস প্রতি এটাই দাম কোহিতুর আমের৷ বিদেশের কোনও এলাকা নয়, পশ্চিমবঙ্গের উপকন্ঠে মুর্শিদাবাদে চাষ হয় এই বিশেষ প্রজাতির আমের৷ এখনও পর্যন্ত বিশ্বের সবচেয়ে দামী আমগুলির অন্যতম হিসেবেই পরিচিত এই কোহিতুর৷

সূত্রের খবর: সম্প্রতি মুর্শিদাবাদ সফরে গিয়েছিলেন কৃষিমন্ত্রী আশিস বন্দ্যোপাধ্যায়৷ তিনি এলাকার আমের ফলন দেখতে বেরিয়েছিলেন৷ তখনই জানতে পারেন এই কোহিতুর আমের কথা৷ কড়কড়ে পাঁচশো টাকার বিনিময়ে একটি আমও ক্রয় করেন৷ বস্তুত, এই আম কিনলে ক্রেতাকে ফ্রি হিসেবে দেওয়া হয় একটি কাঠের ছুরি!

- Advertisement -

কেন? আম ব্যবসায়ীদের দাবি, বিশেষ প্রজাতির এই আম কোনও ধাতব ছুরি দিয়ে কাটলে আমের স্বাদ কিংবা গন্ধ কিছুই থাকে না৷ বরং তা বদলে গিয়ে খাওয়ার অনুপযোগী হয়ে যায়৷ তাই এই আম কাটার অন্যতম শর্ত হল কাঠের ছুরি! স্থানীয় সূত্রের খবর, মায়ানমার থেকে এই বিশেষ প্রজাতির আমের চারা মুর্শিদাবাদে এনেছিলেন স্বয়ং মুর্শিদ কুলি জাফর খাঁ! তারই রাজত্বে মুর্শিদাবাদের একাংশে এই আমের চাষ শুরু হয়৷ পরে মালদহের একাংশেও শুরু হয় এই কোহিতুর আমের চাষ৷

চাষিদের দাবি, এই আম স্বাদে ও গন্ধে অতুলনীয়৷ কিন্তু এই আমের ফলন বেশি হয় না৷ এমনকি এই আমের চাষে খরচ ও সময়ও বেশি লাগে৷ তাই এই বিশেষ প্রজাতির আমের দাম অনেকটাই আকাশছোঁয়া৷ বস্তুত, মালদহ-মুর্শিদাবাদ মানেই আমের ছড়াছড়ি৷ হিমসাগর, ফজলি, ল্যাঙরা তো আছেই সেই সঙ্গে লক্ষ্ণণ ভোগ, আম্রপালি, আশ্বিনা, ফজলি, সূর্যপুরী, পেয়ারা ফুলি, মুলায়মজাম, গোলাপ রানি, সারেঙ্গা – হাজার প্রজাতির আমের চাষ হয় এই দুই জেলার বিস্তৃর্ণ অঞ্চলে।

তবে স্বাদে, গন্ধে এখনও সবাইকে টেক্কা দিয়ে চলেছে কোহিতুর আম। বিশেষ এই আম মে মাস থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সময়ে পাকতে শুরু করে। চাষিরা জানিয়েছেন, আম পিছু ৫০০ টাকা দাম হওয়ায় এরাজ্যের বাজারে এই আম বিশেষ বিক্রি হয় না৷ বেশিরভাগই রফতানি হয়ে যায় বিদেশে৷ ৫০০ টাকার আম খেয়ে মন্ত্রীর কেমন লাগল, তা অবশ্য জানা যায়নি৷ তবে চাইলে আপনিও অর্ডার দিয়ে কিংবা এলাকায় পৌঁছে একবার টেস্ট করে দেখতেই পারেন ৫০০ টাকার আমের স্বাদ ও গন্ধ!

আরও পড়ুন: TET Scam: অরিজিনাল শিক্ষকের খোঁজে জারি হল নোটিস