যে তাঁকে চেনে না, তারও মা সারদা, প্রয়াণের পর দেখা দিয়ে দিয়েছিলেন মাতৃস্নেহ

0
92

বিশ্বদীপ ব্যানার্জি: সারদাদেবী সকলের মা। তবে তিনি কেবল নিজের জীবদ্দশাতেই নয়। এমনকি মহাপ্রয়াণের পরেও ভক্তকে কৃপা করে গিয়েছেন। এমন ভক্তকে কৃপা করেছেন, যে তাঁকে হয়ত চেনেও না। জানেও না তিনি আসলে কে। এমনই এক ঘটনার কথা জানা যায় স্বামী জ্ঞানব্রতানন্দের কথা থেকে।

আরও পড়ুন: ভাব সমাধির ছবিতে শ্রীরামকৃষ্ণ এক হাত তুলে থাকেন কেন

- Advertisement -

ঘটনাটি মায়ের লীলাসংবরণের অনেক পরের। এ সময় বাংলাদেশে রামকৃষ্ণ মিশনের ত্রাণকার্য চলেছে। ফলতঃ বারবার সন্ন্যাসীদের বেলুড় থেকে ওই দেশে যাতায়াত করতে হচ্ছে। এভাবেই একবার যশোরের রাস্তায় একটি চায়ের দোকানে চা খেতে গিয়ে সন্ন্যাসীরা দেখতে পেলেন, মা সারদার ছবি টাঙানো রয়েছে।

দোকানদার মালিক ইসলাম ধর্মাবলম্বী। তাঁকে সাধুরা কৌতুহলের সঙ্গে জিজ্ঞেস করলেন, “জানেন, এই ছবিটি কার?” তখন এক আশ্চর্য উত্তর দেন সেই দোকানদার ভদ্রলোক।

তিনি বলেন, “কার ছবি জানি না।” সাধুরা পাল্টা শুধোলেন, “জানেন না, তাও ছবিটি রেখেছেন?” তখন দোকানদার বলেন, “আমার ৪ বছর বয়সে মা মারা যায়। মায়ের মুখ কেমন ছিল, তা আমার মনে নেই। খুব কাঁদতাম আশে পাশের বন্ধুবান্ধবকে যখন মায়ের আদর খেতে দেখতাম। ভাবতাম, আমার কেন মা নেই! তাই মনে মনে মায়ের একটি রূপ কল্পনা করি। আর সেই মাকে স্বপ্নে দেখতাম। তিনি আমার মাথায় হাত বুলিয়ে দিতেন। কত আদর করতেন!”

খাস খবর ফেসবুক পেজের লিঙ্ক:
https://www.facebook.com/khaskhobor2020/

এরপরই সেই গায়ে কাঁটা দেওয়া মুহূর্ত। সাধুরা অবাক হয়ে শুনলেন দোকানদারটি বলছেন, “মুখটা চেনা হয়ে গিয়েছিল খুব। এরপর বহু বছর পর হাতে একটি ক্যালেন্ডার এল। এই ছবিটা তাতেই ছিল। এই ছবি কার, আমি জানি না। জানার ইচ্ছে-ও নেই। কারণ আমি শুধু জানি, এই আমার স্বপ্নে দেখা সেই মা। যিনি স্বপ্নেই আমাকে মাতৃস্নেহ দিয়েছেন। তাঁকে সামনাসামনি কখনও পাইনি। এই ছবির মাধ্যমে পেয়েছি। তাই ছবিটি বাঁধিয়ে দোকানে টাঙ্গিয়ে দিয়েছি। ছবিটা দেখলেই মনে হয়, মা আমার সঙ্গেই আছে। আমার হারিয়ে যাওয়া মা! আমার মন ভরে যায়।”