মা দুর্গাকে মানতে চাননি রামকৃষ্ণ,শেষে শাড়ি পড়ে দেবীর সখী সেজেই আরতি করেন

0
44

বিশ্বদীপ ব্যানার্জি: যে মা কালী সে-ই তা মা দুর্গা! কার সাধ্য আছে, দুয়ের তফাৎ করে? স্বয়ং রামকৃষ্ণ পরমহংসদেব নাকি করেছিলেন। কেন? কারণ, তিনি ছিলেন শ্যামা মায়ের কোলের ছেলে। সে কারণেই উমা রূপের পুজো দেখতে প্রথমে তাঁর মন চায়নি।

আরও পড়ুন: মাতৃত্বেই কেবল নয়, রসবোধেও সবার সেরা ছিলেন মা সারদা

পরে অবশ্য তাঁর ভুল ভাঙে। অচিরেই ঠাকুর বুঝতে পারেন, তিনি ভুল পথে হাঁটছেন। দুই মা-ই যখন অভিন্ন, তিনি কী করে তাঁদের ভিন্ন করবেন? এ সময় তিনি নিজে থেকে দেবী দুর্গার আরাধনায় যোগ দেন। এ পুজো হয়েছিল খোদ রানী রাসমণির জানবাজারের বাড়ীতে।

যদিও তখন আর রানী ইহজগতে নেই। সাল ১৮৬৪। প্রথমে আসতে না চাইলেও রানীর সেজো জামাই মথুরবাবু বলতে গেলে একপ্রকার জোর করেই ঠাকুরকে নিয়ে আসেন। এরপর নাকি ঠাকুর দুর্গাপুজো, কালীপুজো— শেষে সেই জগদ্ধাত্রী পুজো অবধি কাটিয়ে দক্ষিণেশ্বরে ফিরে যান।

খাস খবর ফেসবুক পেজের লিঙ্ক:
https://www.facebook.com/khaskhobor2020/

ঠাকুরের এই পুজো দেখা নিয়ে একটি ঘটনা লোকমুখে খুব শোনা যায়। ঠাকুরের মধ্যে যে সখীভাব অর্থাৎ নারীসুলভ ভাব আচরণ ছিল, তা আমরা সকলেই জানি। কথিত, এই দুর্গাপুজোর সময় তা আরও প্রকট হয়ে ওঠে। ফলতঃ তিনি শাড়ি-গয়না পরে ঠাকুর মা দুর্গার সখীর বেশও ধারণ করেছিলেন। এবং সেই বেশেই চামড় দুলিয়ে মায়ের আরতি করেন।