আমরা হিন্দিভাষা চাই না: মাতৃভাষাকে সম্বল করে প্রতিবাদে আত্মহত্যা বৃদ্ধ কৃষকের

0
40
anti hindi agitation

চেন্নাই: ডিএমকে অফিসের সামনে গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহত্যা করলেন ৮৫ বছর বয়সী থাঙ্গাভেল নামক এক কৃষক। শনিবার তামিলনাড়ুর সালেম জেলার ঘটনায় তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। জানা গিয়েছে, জোরপূর্বক জনসাধারণের উপর হিন্দি ভাষা ‘চাপিয়ে’ (Anti Hindi agitation) দেওয়ার বিরুদ্ধে প্রতিবাদে আত্মঘাতী হয়েছেন ওই বৃদ্ধ কৃষক। সূত্রের খবর, এদিন সকাল ১১ টা নাগাদ ডিএমকের প্রাক্তন কৃষক ইউনিয়নের সদস্য ওই ব্যক্তি শিক্ষাক্ষেত্রে হিন্দি ভাষা চালু হওয়ার প্রস্তাবনার বিরোধী ছিলেন। আত্মহত্যার আগে একটি চিঠি লিখে কেন্দ্র সরকারের কাছে হিন্দি ভাষা চালু করার প্রস্তাবের বিরোধিতা করেন তিনি।

আরও পড়ুন- ‘তৃণমূলের মূল লড়াই বিজেপির সঙ্গে, সিপিএম তো দুধ ভাত’

- Advertisement -

সেইসঙ্গে পি এন পাট্টি শহরের ডিএমকে পঞ্চায়েত সেক্রেটারির সামনে একটি প্ল্যাকার্ড ও দেখান তিনি। সেখানে লেখা ছিল, “মোদী সরকার, কেন্দ্রীয় সরকার। আমরা হিন্দিভাষা চাই না। আমাদের মাতৃভাষা তামিল। জোর করে হিন্দি ভাষা চাপিয়ে দিলে ছাত্রছাত্রীদের উপর এর কুপ্রভাব পড়বে। হিন্দি সরানো হোক, হিন্দি সরানো হোক, হিন্দি সরানো হোক”। প্রসঙ্গত, তামিলনাড়ুর শাসকদল ডিএমকের যুবমোর্চার সেক্রেটারি তথা মুখ্যমন্ত্রী এমকে স্ট্যালিনের পুত্র উদয়নিধি স্ট্যালিন সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, রাজ্যের উপর জোর করে হিন্দি ভাষা (Anti Hindi Agitation) চাপিয়ে দিলে উনি প্রতিবাদে নামবেন।

আরও পড়ুন- জ্যোতিষীর পরামর্শে দুঃস্বপ্নের প্রতিকার করতে গিয়ে সাপের কামড়ে জ্বিভ হারালেন ব্যক্তি

উল্লেখ্য, চলতি বছর অক্টোবর মাসে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ হিন্দিকে প্রশাসনিক ভাষা বানানোর প্রস্তাব পেশ করেছিলেন। সেখানে বলা হয়েছিল, স্থানীয় স্কুল, টেকনিক্যাল, নন-টেকনিক্যাল কলেজ সহ সেন্ট্রাল বিশ্ববিদ্যালয়েও হিন্দি ভাষাকে (Anti Hindi Agitation) আবশ্যিক করা হোক। আইআইটি, আইআইএম সহ AIIMS, কেন্দ্রীয় বিদ্যালয়, নবনালন্দা বিদ্যালয়েও হিন্দি ভাষাকে আবশ্যিক করার প্রস্তাব দেওয়া হয়। এই নিরিখে গত মাসে প্রস্তাবটির একটি অংশ রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মুর কাছে পেশ করা হয়। প্রস্তাবনা দেওয়া কমিটিটি বলেছিল, একান্ত প্রয়োজন ছাড়া ইংরেজি ব্যবহার করা যাবে না এবং এই সমস্ত শিক্ষাক্ষেত্রে হিন্দিকে ধীরে ধীরে সেইস্থানে নিয়ে আসা হবে।